kalerkantho


বিশ্বনাথ যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দল

তিন মাসের আহ্বায়ক কমিটিতে ৭ বছর

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ ছিল তিন মাস। কিন্তু প্রায় সাত বছর পরও সেই কমিটি দিয়েই খুঁড়িয়ে চলছে সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলা যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দল। সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের কোনো তোড়জোড় নেই আহ্বায়ক কমিটির নেতাদের। পূর্ণাঙ্গ কমিটি না থাকায় বিএনপির এই দুই সহযোগী সংগঠনে এক ধরনের স্থবিরতা বিরাজ করছে।

সূত্রে জানা যায়, উপজেলা যুবদলের ৭১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয় ২০১১ সালের ৩০ আগস্ট। আহমদ নূর উদ্দিনকে আহ্বায়ক ও সুরমান খানকে প্রথম যুগ্ম আহ্বায়ক করে কমিটি গঠিত হয়। একই বছরের শেষের দিকে ৭১ সদস্যের উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয় কাওছার খানকে আহ্বায়ক করে। উভয় কমিটির মেয়াদ ছিল তিন মাস। এ সময়ের মধ্যে সম্মেলন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার দায়িত্ব ছিল আহ্বায়ক কমিটির। কিন্তু প্রায় সাত বছর পরও সম্মেলনের মুখ দেখেনি উপজেলা যুবদল-স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা। পূর্ণাঙ্গ কমিটিও তাই ঘোষিত হয়নি। বিএনপির এই দুই সহযোগী সংগঠনের কমিটি ঘোষণা করেছিলেন ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল ঢাকা থেকে নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলী।

উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ নূর উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের প্রিয় নেতা ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর ২০১২ সালের ২৩ এপ্রিল বিশ্বনাথে সহিংসতার ঘটনায় মিথ্যা মামলায় যুবদলের অনেক নেতাকর্মীকে কারাবরণ করতে হয়। ফলে উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন যুবদলের সম্মেলন সম্পন্ন করা হলেও বাকি দুটি ইউনিয়নে সম্ভব হয়নি। তবে ইউনিয়ন যুবদলের সম্মেলনে শেষে উপজেলা যুবদলের সম্মেলন করা হবে।’

উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক কাওছার খান বলেন, ‘অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে বর্তমানে উপজেলায় স্বেচ্ছাসেবক দল অনেক শক্তিশালী। তবে খুব শিগগিরই উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে স্বেচ্ছাসেবক দলের সম্মেলন শেষে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সম্মেলন করা হবে।’



মন্তব্য