kalerkantho


নান্দাইলে বন্ধ হচ্ছে না জুয়ার আসর

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মুশুলি ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি স্থানে জুয়ার আসর চলছেই। এসব স্থানে দিনে-রাতে জুয়াড়িদের আনাগোনায় এলাকার মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। বাড়ছে চুরি-ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অভিযোগ, জুয়ার আসর কোনোভাবেই বন্ধ করা যাচ্ছে না।

সরেজমিন এসব এলাকা ঘুরে জানা গেছে, পেশাদার জুয়াড়িরা এসব জুয়ার আসর বসাচ্ছে। উপজেলার মুশুলি ইউনিয়নের আগমুশুলি গ্রাম, নয়াপাড়া গ্রামের কুড়েরপাড় ও গোয়ালপাড়া এলাকা, তারঘাট বাজারের কাছে এক পল্লীচিকিৎসকের বাড়ির পাশে ও রাজগাতী ইউনিয়নের ফরিদাকান্দা গ্রামের ওপর দিয়ে যাওয়া রেললাইনের আশপাশে এসব জুয়ার আসর বসানো হচ্ছে। এসব আসরে সকাল ১১টা থেকে দুপুর পর্যন্ত, আবার সন্ধ্যার পর থেকে সারা রাত ধরে জুয়া খেলা চলে। বিভিন্ন এলাকার বড় জুয়াড়িরা এসব আসরে জুয়া খেলতে আসে। সঙ্গে চলে মাদকের কারবার।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এলাকার মুর্শিদ মিয়া সৌদি আরব থেকে দুই বছর আগে দেশে চলে আসে। এরপর সে মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। জেলা গোয়েন্দা পুলিশ বেশ কয়েকবার ধাওয়া করেও তাকে ধরতে পারেনি। এ অবস্থায় বিভিন্ন স্থানে জুয়ার আসর বসিয়ে সে দেদার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। তার সহযোগী হিসেবে রয়েছে সজল মিয়া, সোহেল, সাইফুল, জিলু মিয়া, এমদাদুল, আলমসহ ১০-১২ জনের একটি চক্র।

মুশুলি ইউপি চেয়ারম্যান ইফতেখার উদ্দিন ভুঁইয়া বিপ্লব বলেন, ‘এ ঘটনা নতুন কিছু নয়। কাউকে বলেও কোনো কাজ হচ্ছে না। ঘটনাটি বেশ কয়েকবার উপজেলা পরিষদের আইন-শৃঙ্খলা সভায় ওঠানো হলেও কাজ হয়নি।’

ওই ইউনিয়নের দুই নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার মো. ওমর ফারুক বলেন, আগমুশুলি গ্রামের মুর্শিদ মিয়া ও উত্তর মুশুলি গ্রামের সজল মিয়ার আয়োজনে জুয়ার আসরটি দুই দিন আগে ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা জায়গা পরিবর্তন করে আবার জুয়ার আসর চালিয়ে যাচ্ছে। আগমুশুলি গ্রামের সোহেল মিয়া সহযোগীদের নিয়ে ফরিদাকান্দা গ্রামের রেললাইনের আশপাশে জুয়ার আসর চালাচ্ছে।

তবে জুয়ার আয়োজক মুর্শিদ মিয়া মোবাইল ফোনে বলেন, ‘এলাকার একটি চক্র আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ ছড়াচ্ছে।’



মন্তব্য