kalerkantho


জব্দ ১০৬০ বস্তা ভিজিএফের চাল

ময়মনসিংহ (আঞ্চলিক) ও নেত্রকোনা প্রতিনিধি   

১৬ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



ময়মনসিংহ ও নেত্রকোনা থেকে ভিজিএফের এক হাজার ৬০ বস্তা চাল জব্দ করা হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে হতদরিদ্রদের জন্য বরাদ্দের এ চাল সুষ্ঠুভাবে বণ্টন না করার অভিযোগে তা জব্দ করে প্রশাসন। তবে এ ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া সম্ভব হয়নি।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ ও নান্দাইল উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৯৯০ কেজি চাল জব্দ করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার গভীর রাতে ঈশ্বরগঞ্জের সোহাগী বাজারে পাঁচজন ব্যবসায়ীর ঘর থেকে ২৩০ বস্তা চাল আটক করে প্রশাসন। এর আগে উপজেলার রাজীবপুর ইউনিয়নের শাহগঞ্জ বাজারের দুজন ব্যবসায়ীর ঘরে বিপুল পরিমাণ ভিজিএফের চাল অবৈধভাবে মজুদ রাখার তথ্য পাওয়া যায়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত সোমবার উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মঈনুল ইসলাম ওই দুই ব্যবসায়ীর দোকানে অভিযান চালান। এ সময় একটি দোকান থেকে ২০১ বস্তা, অন্য দোকান থেকে ৩৬ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়। এ ছাড়া উপজেলার তারুন্দিয়া ইউনিয়নের কোনাপাড়া বাজারের একটি দোকান থেকে ২৩ বস্তা চাল জব্দ করেন ঈশ্বরগঞ্জের ইউএনও এলিশ শরমিন।

এদিকে গত রবিবার নান্দাইল উপজেলার বৈতাগৈর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনসংলগ্ন একটি দোকান থেকে প্রায় ৫০০ কেজি ভিজিএফের চাল উদ্ধার করে তা জব্দ করেন ইউএনও মোসাদ্দেক মেহ্দী ইমাম।

অন্যদিকে গত মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টার দিকে নেত্রকোনার বারহাট্টা উপজেলার আসমা ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভিজিএফের ৭০ বস্তা চাল জব্দ করে পুলিশ। কালোবাজারে বিক্রির পরিকল্পনার অভিযোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফরিদা ইয়াসমিনের নেতৃত্বে চালগুলো জব্দ করা হয়। জানা যায়, ভিজিএফের চালগুলো যথাসময়ে বিতরণ না করে ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাশেম পরিষদে রেখে দেন। খবর পেয়ে চালের বস্তাগুলো জব্দ করে থানায় পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান গাঢাকা দিয়ে আছেন।

 

 



মন্তব্য