kalerkantho


লক্ষ্মীপুরে কিশোরীর লাশ, কালিহাতীতে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

লক্ষ্মীপুর ও টাঙ্গাইল প্রতিনিধি   

১১ জুন, ২০১৮ ০০:০০



লক্ষ্মীপুরে ধর্ষণের পর আসমা আক্তার (১৪) নামের এক কিশোরীকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার রাতে সদর উপজেলার শাকচর গ্রামে একটি পুকুর থেকে ওই কিশোরীর লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত আসমা শাকচর গ্রামের ফয়েজ আহমেদের মেয়ে।  

নিহতের পরিবার জানায়, আসমাকে বাড়িতে ওর নানির কাছে রেখে আসমার মা-বাবা ফেনীতে গিয়েছিলেন। শনিবার সন্ধ্যায় আসমাকে বাড়িতে দেখতে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি করতে থাকে নানিসহ স্বজনরা। রাত ১০টার দিকে বাড়ির পাশের একটি পুকুরে তার দেহ ভাসতে দেখা যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জয়নাল আবদীন বলেন, ‘আসমাকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। তার গলাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে ধর্ষণ করা হয়েছে কি না।’

জানতে চাইলে লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ মোসলেহ্ উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত যুবক পলাতক রয়েছে। ধর্ষণের শিকার স্কুলছাত্রীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে শনিবার রাতে কালিহাতী থানায় মামলা করেছেন।

কালিহাতী থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন ও স্থানীয়রা জানায়, ওই ছাত্রীকে উপজেলার মালতি গ্রামের তায়েজ উদ্দিনের ছেলে মাহবুব হোসেন তার ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে মেয়েটি কান্নাকাটি করলে আশপাশের লোকজন বিষয়টি টের পায়। এ সময় মাহবুব পালিয়ে যায়। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। শনিবার রাতে মেয়ের বাবা মাহবুবকে আসামি করে মামলা করেছেন।



মন্তব্য