kalerkantho


শ্রীমঙ্গল

স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করল স্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, মৌলভীবাজার   

১৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



স্বামী বিভীষণ বাউরীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে স্ত্রী সুশীলা বাউরী। ঘটনাটি ঘটেছে শ্রীমঙ্গল উপজেলার জাগছড়া চা বাগানে এক বছর আগে। গত সোমবার দুপুরে সুশীলাকে গ্রেপ্তারের পর মৌলভীবাজারের বিচারিক হাকিম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

শ্রীমঙ্গল থানার পরিদর্শক কে এম নজরুল ইসলাম জানান, ২০১৭ সালে ২৭ মার্চ সকাল সাড়ে ৮টায় শ্রীমঙ্গল শহরতলির জাগছড়া চা বাগানে এক ব্যক্তি আত্মহত্যা করেছেন—এমন খবর থানায় আসে। ওই ব্যক্তি নিজের মাথায় দা দিয়ে আঘাত করে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রচার করা হয়। এই খবর পেয়ে তিনি ও থানার উপপরিদর্শক মো. ফজলে রাব্বী ঘটনাস্থলে যান। ৫০ বছর বয়সী বিভীষণ বাউরীর মৃতদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন উপস্থিত সাক্ষীদের সামনে তৈরি করা হয়। তাঁর মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ের জন্য লাশ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। সেখানে ময়নাতদন্ত করা হয়। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর পর্যালোচনায় দেখা যায়, বিভীষণ বাউরীর মৃত্যু কোনো আত্মহত্যা নয়। হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে সঠিক তথ্য উদ্ঘাটনের জন্য নিহতের স্ত্রী ও মেয়ে বৃষ্টি বাউরীকে থানায় ডেকে এনে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সুশীলা স্বামীকে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করে।

সুশীলা জানায়, বিভীষণ নেশাগ্রস্ত অবস্থায় পরিবারের সদস্যদের প্রায়ই মারধর করতেন। এ কারণে স্ত্রী স্বামীর ওপর ক্ষিপ্ত ছিল। রাত ১০টার দিকে স্বামী তাকে মারধর করেন ও ঘরের তৈজসপত্র ভেঙে ফেলেন। এ সময় সে স্বামীর মাথায় দা দিয়ে কোপ দেয় এবং এলোপাতাড়ি মারধর করে। এতে তাঁর মৃত্যু হয়।

হত্যা রহস্য উদ্ঘাটিত হওয়ার পর শ্রীমঙ্গল থানার উপপরিদর্শক মো. ফজলে রাব্বী একটি হত্যা মামলা করেন। এই মামলার আসামি আদালতে স্বেচ্ছায় ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেন।



মন্তব্য