kalerkantho


নলডাঙ্গায় চালককে কুপিয়ে হত্যা

ফরিদপুরে শিশু, ইন্দুরকানী ও নবাবগঞ্জে দুই যুবকের লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

৯ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



নাটোরের নলডাঙ্গায় শান্ত নামের একজন ব্যাটারিচালিত অটো ভ্যানচালককে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার মির্জাপুর দিয়ারপাড়া গ্রামের রাস্তার পাশ থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ হত্যায় জড়িত সন্দেহে আব্দুর রশিদ নামের প্রতিবেশী এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। শান্ত উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মোহম্মদ জয়নালের ছেলে। এদিকে গত বুধবার রাতে ও গতকাল ফরিদপুরে শিশুর এবং পিরোজপুরের ইন্দুরকানী ও দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে দুই যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কালের কণ্ঠ’র নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

নাটোর : নিহত শান্তর স্বজনরা জানায়, বুধবার সন্ধ্যায় শান্তকে একই গ্রামের (মির্জাপুর) মোহম্মদ সোফার ছেলে আব্দুর রশিদ ডেকে নিয়ে যায়। রাতে শান্ত বাড়ি না ফেরায় স্বজনরা খোঁজাখুঁজি করেও তাঁকে পায়নি। গতকাল ভোরে এলাকাবাসী মির্জাপুর দিয়ারপাড়ার রাস্তার পাশে মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে শান্তর পরিবারকে জানায়। শান্তর মামা বাদল হোসেন বলেন, অটো ভ্যানটি ছিনিয়ে নিতেই প্রতিবেশী রশিদ শান্তকে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিতভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে। নলডাঙ্গা থানার ওসি মোস্তফা কামাল জানান, অটো ভ্যান ছিনতাই করার উদ্দেশ্যেই এ হত্যাকাণ্ড বলে পুলিশের ধারণা। নিহতের গলায় ও বাঁ পাঁজরে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে শান্তর মৃত্যু হয়েছে।

ফরিদপুর : শহরের পশ্চিম খাবাসপুরের মিয়াপাড়া সড়ক এলাকার একটি বাঁশঝাড়ে বস্তা থেকে বুধবার রাতে নীরব খন্দকারের (৯) অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে কোতোয়ালি থানার পুলিশ। নীরব ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের নিজ গ্রামের মো. আসাদ খন্দকারের ছেলে। কিছুদিন আগে সে পশ্চিম খাবাসপুরে তার চাচা মো. আসমতের বাড়িতে আসে। গত শনিবার থেকে শিশুটি নিখোঁজ ছিল। এ ব্যাপারে কোতোয়ালি থানায় নিখোঁজ ডায়েরি ও এলাকায় মাইকিং করা হয়।

কোতোয়ালি থানার ওসি এ এফ এম নাসিম বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, শিশুটিকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য গতকাল ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। থানায় হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন।

পিরোজপুর : বুধবার সন্ধ্যায় ইন্দুরকানী উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামে নিজ বাড়িতে নাজমুল গাজী (২৭) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে তাঁর পরিবার জানিয়েছে। তিনি সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল খালেক গাজীর ছেলে।

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্র জানায়, দুই সন্তানের জনক নাজমুল গাজী তাঁর স্ত্রী ইয়াসমিন বেগমকে আনতে বুধবার দুপুরে নলবুনিয়া গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে যান। ইয়াসমিন আসতে না চাইলে নাজমুল অভিমান করে সন্ধ্যায় একা বাড়ি ফেরেন। পরে মায়ের কাছে হাত খরচের কিছু টাকা চান। মা টাকা আনতে গেলে নাজমুল নিজের ঘরে ঢুকে বৈদ্যুতিক পাখার সঙ্গে গলায় ফাঁস দেন। ইন্দুরকানী থানার ওসি (তদন্ত) আবদুস সালাম বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে রাতে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য বৃহস্পতিবার পিরোজপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

দিনাজপুর : গতকাল ভোরে দিনাজপুর-গোবিন্দগঞ্জ সড়কের নবাবগঞ্জ উপজেলার বাজিতপুরে পথচারীরা অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের (৩২) লাশ দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাশটি করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। নিহতের পা ভাঙাসহ শরীরে জখম ছিল। নবাবগঞ্জ থানার ওসি সুব্রত কুমার সরকার জানান, এ বিষয়ে থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। 



মন্তব্য