kalerkantho


ছয় জেলায় চার খুন, তিন লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



কুড়িগ্রামের উলিপুর ও চিলমারী, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর এবং সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে চারজন খুন হয়েছেন। চাঁদপুর সদর, টাঙ্গাইলের কালিহাতী ও হবিগঞ্জের মাধবপুরে তরুণীসহ তিনজনের লাশ মিলেছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

কুড়িগ্রাম : উলিপুর উপজেলায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ সান্ত্বনা বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার রাতে কাশিমবাজার গ্রামে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শ্বশুর মহিরুদ্দিন ও ভাশুর রবিউল ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ। সান্ত্বনা চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। তাঁর স্বামী সামিউল কর্মসূত্রে ঢাকায় থাকেন। জানা যায়, শুক্রবার রাতে সান্ত্বনা পুকুরের মাটি আনতে গেলে শাশুড়ির সঙ্গে কথা-কথাকাটি হয়। এর জেরে শাশুড়ি রূপসী, জা রুপিয়া, ননদ রওশনারা মিলে তাঁকে বেধড়ক মারধরের একপর্যায়ে গলাটিপে হত্যা করে। পরে মুখে বিষ ঢেলে মৃত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়।

এদিকে চিলমারী উপজেলায় পারিবারিক কলহের জেরে ছামাদ প্রামাণিককে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার রাতে গয়নার পটল এলাকায়। এ ঘটনায় ছামাদের স্ত্রীসহ তিন নারীকে আটক করেছে পুলিশ। নয়ারহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু হানিফা ও স্থানীয়রা জানায়, ছামাদের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী লাইলী বেগমের প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ হতো। শুক্রবার রাতেও দুজনের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে স্ত্রীকে মারধর শুরু করেন ছামাদ। এতে উত্তেজিত হয়ে লাইলীর ছোট ভাই হক খাঁ, ভাতিজি শিল্পী খাতুন, বেয়াই নওছেল, নওছেলের স্ত্রী সবিলা বেগম ছামাদকে মারধর ও শ্বাসরোধ করে। চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে গিয়ে ছামাদের লাশ দেখতে পায়। এ সময় তারা লাইলী, শিল্পী ও সবিলাকে আটক করে পুলিশে দেয়।

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) : টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার জোকারচর এলাকায় বালুর স্তূপ থেকে নিখোঁজ আব্দুর রাজ্জাকের গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সকালে লাশটি উদ্ধারের পর টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। কালিহাতীর নারান্দিয়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে রাজ্জাক ৮-৯ দিন ধরে নিখোঁজ ছিলেন।

হবিগঞ্জ : মাধবপুর উপজেলার শাহপুর বাজারসংলগ্ন রেল সেতুর নিচ থেকে গতকাল শনিবার দুপুরে অজ্ঞাতপরিচয় একজনের (৫০) লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশের ধারণা, শুক্রবার রাতের কোনো এক সময় ট্রেন থেকে পড়ে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : নবীনগর উপজেলায় প্রতিপক্ষের হামলায় প্রবাসী মো. দুলাল মিয়া খুন হয়েছেন। শনিবার ভোরে উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এতে জড়িত সন্দেহে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। উত্তেজনা বিরাজ করায় ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। দুলাল লক্ষ্মীপুরের মুনসুর আলীর ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুরের মুসলিম মিয়া ও বসু মিয়ার সমর্থকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। জমিসহ বিভিন্ন কারণে তাদের মধ্যে একাধিক মামলা আছে। এসব বিষয় স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা হয়। পরে দুই পক্ষকে ডেকে নিয়ে পুলিশও মীমাংসার চেষ্টা করে। এরই মধ্যে এক পক্ষের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা হয়। গতকাল সকালে দুই পক্ষের মধ্যে বৈঠক হওয়ার কথা। কিন্তু শুক্রবার রাতে মুসলিমের সমর্থকরা বসুর এক সমর্থককে মারধর করে। পরে এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়াধাওয়ির ঘটনা ঘটে। রাতে বাড়ি ফেরার পথে মুসলিমের একাধিক সমর্থকের ওপর হামলা হয়। এর মধ্যে দুলালকে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

চাঁদপুর : সদর উপজেলায় সবজিক্ষেত থেকে অজ্ঞাতপরিচয় তরুণীর (১৮) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার সকালে মির্জাপুর গ্রামের ক্ষেত থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশের ধারণা, ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে দুবৃর্ত্তরা তরুণীকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ মামলা করেছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য দুপুরে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সুনামগঞ্জ : তুচ্ছ বিষয়ের জেরে স্বামীর হাতে স্ত্রী স্বরূপা আক্তার খুন হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার রাতে তাহিরপুর উপজেলার চারাগাঁওয়ে। গতকাল শনিবার সকালে স্বামী ফারুক মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে পুুলিশ। জানা যায়, শুক্রবার দুপুরে স্বরূপা ও তাঁর স্বামী ফারুক নিজেদের ঘরে সেলাইয়ের কাজ করছিলেন। হঠাৎ সেলাই নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে ফারুক কেঁচি দিয়ে স্ত্রীর হাত ও পেটে আঘাত করেন। পরে স্থানীয়রা পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিলে তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়। রাতে স্বরূপার মৃত্যু হয়।


মন্তব্য