kalerkantho


দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথ

পাঁচটি ফেরিই বিকল চার কিমি যানজট

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

২ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



পাঁচটি ফেরিই বিকল চার কিমি যানজট

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় আটকা পড়ে আছে ঢাকাগামী পণ্যবাহী শত শত ট্রাক। ছবিটি গতকাল দৌলতদিয়া ইউনিয়ন বোর্ড এলাকা থেকে তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

ব্যস্ততম দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলকারী ফেরির সংখ্যা দিন দিন কমছে। বহরে থাকা ১০টি রো রো (বড়) ফেরির মধ্যে বর্তমানে পাঁচটিই বিকল হয়ে আছে। এতে ফেরির তীব্র সংকটে স্বাভাবিক পারাপার ব্যাহত হচ্ছে। পাশাপাশি যাত্রীবাহী বাস, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার করায় পণ্যবাহী অনেক ট্রাক দিনের পর দিন ঘাটেই আটকে পড়ে থাকছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দৌলতদিয়া ঘাটে আটকে পড়েছে ঢাকাগামী পণ্যবাহী পাঁচ শতাধিক ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান। এতে টার্মিনালের বিশাল পার্কিং ইয়ার্ড উপচে ফেরিঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে দৌলতদিয়া-খুলনা মহাসড়কের বাংলাদেশ হ্যাচারিজ পর্যন্ত চার কিলোমিটার ফোর লেন রাস্তার এক পাশে ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানের জট তৈরি হয়েছে।

বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট অফিস সূত্রে জানা যায়, চলাচলকারী ফেরিগুলো অনেক পুরনো। তাই সেগুলো ঘন ঘন বিকল হয়ে যায়। বহরে থাকা ১০টি রো রো (বড়) ফেরির মধ্যে কেরামত আলী নামের ফেরিটি গত মঙ্গলবার রাতে হঠাৎ বিকল হয়ে পড়ে। পরদিন বুধবার ভোরে মেরামতের জন্য ফেরিটি নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে পাঠানো হয়। সেখানে (নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ড) দীর্ঘদিন ধরে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান, শাহ জালাল ও বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমীন নামে তিনটি ফেরির মেরামতকাজ চলছে। পাশাপাশি বিকল হয়ে পড়া বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান নামের রো রো (বড়) ফেরিটি পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানা মধুমতিতে রয়েছে। এদিকে এ নৌপথে দুটি কে-টাইপ, ছয়টি ইউটিলিটি ও একটি মিডিয়াম ফেরি থাকলেও সেগুলোর ধারণক্ষমতা অনেক কম। এ ফেরিগুলোও অনেক পুরনো হওয়ায় বিভিন্ন যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ঘন ঘন বিকল হয়ে পড়ছে। তা ছাড়া ডকইয়ার্ড-ওয়ার্কশপে থাকা বিকল ফেরিগুলোর মেরামতকাজ চলছে অনেক ধীরে। তাই গুরুত্বপূর্ণ এ নৌপথে ফেরির সংকট সহসা কাটছেই না। গতকাল বৃহস্পতিবার দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরির টিকিট লাইনে (সিরিয়ালে) আটকে পড়ে ঢাকাগামী পণ্যবাহী পাঁচ শতাধিক ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান। মাত্র তিন কিলোমিটার দীর্ঘ এই নৌপথ পাড়ি দিতে দিনের পর দিন দৌলতদিয়া ঘাটে আটকে পড়ে থাকতে হচ্ছে ট্রাকচালক ও সহকারীদের।

বিআইডাব্লিউটিসির দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক মো. শফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি বড় ফেরি বিকল থাকার কারণে দৌলতদিয়া ঘাটে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। বিকল ফেরিগুলো দ্রুত মেরামত করে বহরে ফেরানো না হলে ঘাটের পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ হবে।’



মন্তব্য