kalerkantho


বখাটের নেতৃত্বে ছাত্রীকে মারধর, হত্যার হুমকি

রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

১ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



রাজবাড়ীতে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে (১৬) বেধড়ক মারধর করা হয়েছে। এ ঘটনায় গতকাল বুধবার সকালে রাজবাড়ী থানায় একটি মামলা করেছেন নির্যাতিতের বাবা।

মামলার বিষয়ে ওই ছাত্রীর বাবা জানান, বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার পথে বখাটে আরিফ মোল্লা তাঁর মেয়েকে প্রেমসহ কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল। ওই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় গত সোমবার বিকেলে স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার সময় আরিফ তাঁর মেয়ের পথ রোধ করে। আরিফ মেয়েটির হাত, ওড়না ধরে টানাটানিসহ যৌন হয়রানির চেষ্টা চালায়। আকস্মিক এ ঘটনায় মেয়েটি প্রতিবাদ করার পাশাপাশি পথচারীদের সাহায্য পাওয়ার জন্য চিৎকার করলে আরিফ পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাটি পরিবারের সবাইকে জানায়। তারা আরিফের বোন অজুফা বেগম ও মা তাসলিমা বেগমের কাছে এ ঘটনার বিচার চায়। এতে আরিফসহ তার পরিবারের সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে মেয়েটিকে ক্ষতি করার ছক কষে।

গত মঙ্গলবার বিকেলে স্কুল থেকে চারজন সহপাঠীর সঙ্গে নিজ বাড়ির উদ্দেশে রওনা হয় মেয়েটি। তারা আসামিদের বাড়ির সামনের রাস্তায় পৌঁছাতেই আরিফের নেতৃত্বে কয়েকজন মেয়েটির পথ রোধ করে। সহপাঠীদের সামনেই মাথার চুল ধরে কিল-ঘুষি দিয়ে মেয়েটিকে মাটিতে ফেলে দেওয়া হয়। পরে বাঁশের লাঠি দিয়ে অমানবিকভাবে মারধর করে। এতে মেয়েটির শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়। এ সময় তার বান্ধবীদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা খুনের হুমকি দিয়ে চলে যায়। ওই অবস্থায় মেয়েকে উদ্ধার করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়।

মামলার আসামিরা হলো রাজবাড়ী সদর উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের চর শ্যামনগর গ্রামের আলেক মোল্লার ছেলে আরিফ মোল্লা (২০), আরিফের ভাই শরিফ মোল্লা, আরিফের বোন অজুফা বেগম, আরিফের মা তাসলিমা বেগমসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরো তিন-চারজন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও রাজবাড়ী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মামুন অর রশিদ জানান, আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


মন্তব্য