kalerkantho


ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরীতে প্লট বরাদ্দে অনিয়ম

উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরীতে ৩০টি প্লট বরাদ্দে অনিয়মের অভিযোগে উচ্চ আদালত তাদের সব ধরনের কার্যক্রমের ওপর এক বছরের স্থগিতাদেশ জারি করেন। ছবি : কালের কণ্ঠ

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার বিসিক শিল্পনগরীতে ৩০টি প্লট বরাদ্দে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিন দশক আগে ৩০টি প্লটের জন্য ২৩ জন ব্যবসায়ী ব্যাংকে টাকা জমা দিলেও তাঁদের প্লট বুঝিয়ে দেয়নি বিসিক শিল্পনগরী কর্তৃপক্ষ। সম্প্রতি ওই প্লটগুলো চড়া দামে অন্যদের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই ২৩ ব্যবসায়ী উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করলে বিরোধপূর্ণ ৩০ প্লটে কোনো ধরনের কার্যক্রম চালানোর ওপর এক বছরের স্থগিতাদেশ জারি করা হয়। গতকাল বুধবার বিরোধপূর্ণ প্লটগুলোতে আদালতের নিষেধাজ্ঞার সাইনবোর্ড সাঁটানো হয়েছে।

জানা গেছে, হোসিয়ারিশিল্পের অস্তিত্ব রক্ষায় নারায়ণগঞ্জের হোসিয়ারি শিল্প ইউনিটকে কেন্দ্র করে পুনর্বাসন ও নতুন কারখানা স্থাপনে ১৯৮৫ সালে মনোটাইপ শিল্পনগর প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা নেয় সরকার। ১৯৮৮-৮৯ সালে বিসিক শিল্পনগরীতে প্লট বরাদ্দ দেওয়ার আহ্বান করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে বিসিক কর্তৃপক্ষ। পরে ১৯৯০ সালে বিসিক, শিল্প মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ হোসিয়ারি অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে পঞ্চবটীর শাসনগাঁও এলাকায় ৫৮ দশমিক ৫২ একর জায়গার ওপর বিসিক হোসিয়ারি শিল্পনগরী প্রতিষ্ঠা করা হয়। বিসিক হোসিয়ারি শিল্পনগরীর ৭১৪টি ইউনিটের মধ্যে পাঁচ কাঠার ১৮৬টি এবং তিন কাঠার ৫২৮টি প্লট রয়েছে।

এদিকে ১৯৮৮-৮৯ সালে বিসিক শিল্পনগরীর বিজ্ঞপ্তি দেখে ৩০টি প্লটের জন্য ২৩ জন ব্যবসায়ী বিসিকের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে (জনতা ব্যাংক এসটিডি-৭ ছৈয়দ আলী চেম্বার শাখায়) টাকা জমা দিয়ে বাংলাদেশ হোসিয়ারি সমিতির কাছ থেকে রসিদ নেন। এরপর দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও তাঁদের প্লট বুঝিয়ে দেওয়া হয়নি। বিরোধপূর্ণ ওই প্লটগুলো ২০১৬ সালের জুন মাসে ১২ জন শিল্প মালিকের কাছে বিক্রি করে দেয় বিসিক কর্তৃপক্ষ।

এ ঘটনায় ওই ২৩ ব্যবসায়ী উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করলে ২০১৭ সালের ১ আগস্ট বিরোধপূর্ণ ৩০টি প্লটে কার্যক্রম চালানোর ওপর ছয় মাসের স্থগিতাদেশ জারি করেন আদালত। এরপর গত ২৩ জানুয়ারি হাইকোর্টের বিচারপতি নাঈমা হায়দার ও জাফর আহমেদের দ্বৈত বেঞ্চ আরো এক বছরের জন্য স্থগিতাদেশ জারি করেন। এ ছাড়া ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীরা ২০১৭ সালের ২৯ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ দ্বিতীয় যুগ্ম জেলা জজ আদালতে একটি দেওয়ানি মামলা করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার ওই ৩০টি প্লটে নিষেধাজ্ঞার সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ হোসিয়ারি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নাজমুল আলম সজল বলেন, ‘আমি এখনো উচ্চ আদালতের আদেশের কোনো কাগজ পাইনি।’ বিসিক শিল্পনগরীর স্টেট অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ওই ২৩ ব্যবসায়ী যথাযথ নিয়মে বিসিক শিল্পনগরীর বরাবর আবেদন করেননি। তাঁরা হোসিয়ারি অ্যাসোসিয়েশনের বরাবর টাকা জমা দিয়েছিলেন। এ জন্য প্লট বুঝে পাননি।

অবৈধ পার্কিং : ৪৩টি গাড়িকে জরিমানা

এদিকে নারায়ণগঞ্জ শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে (বিবি রোড) অবৈধ পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রেখেছে ট্রাফিক বিভাগ। গতকাল বুধবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলা অভিযানে ৪৩টি যানবাহনকে ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জেলা পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক (টিআই) শরফুদ্দিন অভিযানে নেতৃত্ব দেন। এ সময় ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তা ও সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

শরফুদ্দিন জানান, মঙ্গলবারের মতো বুধবারও সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চাষাঢ়া থেকে ২ নম্বর রেলগেট পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সড়কে অবৈধ পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযান চালায় ট্রাফিক পুলিশ।


মন্তব্য