kalerkantho


বাঘাবাড়ীর চার বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২০ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার বাঘাবাড়ীতে সরকারি-বেসরকারি পাঁচটি বিদ্যুৎকেন্দ্র রয়েছে। যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এর মধ্যে চারটি বন্ধ রয়েছে। এগুলো এক মাসের মধ্যে চালু করতে না পারলে আসন্ন সেচ মৌসুম ও গরমে উত্তরাঞ্চলজুড়ে তীব্র লোডশেডিংয়ের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাঘাবাড়ীতে রয়েছে ৫০ মেগাওয়াট পিকিং (ফার্নেস অয়েল চালিত), ১০০ ও ৭১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র । এই তিনটি কেন্দ্রের মালিক বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। এ ছাড়া ইউনাইটেড গ্রুপের ভাসমান ৪৫ মেগাওয়াট করে দুটি বিদ্যুৎকেন্দ্র ওয়েস্ট মাউন্ট বিজয়ের আলো ১ ও ২। এসব কেন্দ্র থেকে জাতীয় গ্রিডে ৩১১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হওয়ার কথা। শুরুতে বিজয়ের আলো ১ জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ দিতে পেরেছে। বিজয়ের আলো ২ স্থাপনের পর কোনো দিন উৎপাদনে যেতে পারেনি। এগুলোর মধ্যে পিডিবির ৫০ মেগাওয়াট পিকিং কেন্দ্রটি চালু রয়েছে। বাকি সব কটি যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে। বন্ধ সব কেন্দ্র গ্যাসে চালিত।

সম্প্রতি বাঘাবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো ঘুরে দেখা গেছে, পিডিবির ১০০ মেগাওয়াট কেন্দ্র গত বছরের আগস্টে যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে বন্ধ হয়। এ ছাড়া ৭১ মেগাওয়াট কেন্দ্র ওভারহোলিংয়ের জন্য গত বছরের ১ অক্টোবর থেকে বন্ধ রাখা হয়েছে।

বগুড়া ন্যাশনাল লোড ডেসপাচ সার্কেলের (এনএলডিসি) একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে প্রতিদিন রাজশাহী বিভাগে ৮৮০ মেগাওয়াট ও রংপুর বিভাগে ৫২৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ব্যবহৃত হচ্ছে। গরম ও সেচ শুরু হলে রাজশাহী বিভাগে এক হাজার ৩০০ ও রংপুর বিভাগে ৯৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রতিদিন দরকার পড়বে।

সূত্র আরো জানায়, উত্তরাঞ্চলের গ্রিডে দেশের বিভিন্ন স্থানের কেন্দ্রের উৎপাদিত বিদ্যুৎ উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে এখানে আসে। এসব গ্রিড থেকে চাহিদামতো বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। বাঘাবাড়ীতে অবস্থিত পিডিবির সব কেন্দ্র আগামী এক মাসের ভেতর চালু না করা গেলে আসন্ন মৌসুমে গ্রিডগুলোতে ঘাটতি মোকাবেলা করা যাবে না।

পিডিবির বাঘাবাড়ী বিদ্যুেকন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মোস্তফা আল মামুন জানান, ১০০ মেগাওয়াট কেন্দ্রের যান্ত্রিক ত্রুটি এবং ৭১ মেগাওয়াট কেন্দ্রে রুটিনওয়ার্ক হিসেবে ওভারহোলিং (সংস্কার) করা হচ্ছে। এ কারণে কেন্দ্র দুটি বন্ধ রয়েছে। চাহিদার কথা বিবেচনা করে প্রতিদিন সন্ধ্যার পর পিক আওয়ারে ৫০ মেগাওয়াট পিকিং কেন্দ্র চালু করতে হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘পিকিং প্লান্টে ইউনিটপ্রতি বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ বেশি হওয়ায় রাতে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য এটি চালু করা হয়।’

পিডিবির বাঘাবাড়ী বিদ্যুেকন্দ্রের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো. ইবনুল হোসেন বলেন, ‘যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ১০০ মেগাওয়াট কেন্দ্রটি শিগগির চালু করা সম্ভব না। ৭১ মেগাওয়াট কেন্দ্র ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে চালু করা সম্ভব হবে, যদি গ্যাস সরবরাহ পাওয়া যায়।



মন্তব্য