kalerkantho


ইজতেমা ময়দানে চলছে দ্বিতীয় পর্বের আয়োজন

টঙ্গী (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

১৭ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



টঙ্গীর কহর দরিয়া নদীর তীরে আগামী শুক্রবার শুরু হচ্ছে তাবলিগ জামাতের দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমা। গত রবিবার মোনাজাতের মাধ্যমে প্রথম পর্ব শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয় পর্ব শুরু করার লক্ষ্যে ইজতেমা ময়দানে চলছে পরিষ্কার-পরিছন্নতার কাজ।

শুক্রবার বাদ ফজর আমবয়ানের মাধ্যমে শুরু হয়ে আগামী রবিবার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এ বছরের ইজতেমা।

ময়দান ঘুরে দেখা গেছে, দ্বিতীয় পর্বের পরিষ্কার-পরিছন্নতাসহ সব প্রকার প্রস্তুতি কাজ চলছে। এরই মধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে তাবলিগ জামাতের অনুসারীরা দ্বিতীয় পর্বে অংশ নিতে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছে। তারা ইজতেমা শুরুর আগে পৌঁছবে। ইজতেমা শেষে তারা ইসলামের দাওয়াতি কাজ বিশ্বব্যাপী পৌঁছে দেওয়ার জন্য জামাতবদ্ধ হয়ে বেরিয়ে যাবে।

এদিকে বিভিন্ন জেলা থেকে আসা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের থাকা-খাওয়ার জন্য স্থানীয় সরকারি ও বেসরকারি স্কুল-কলেজ ব্যবহার করায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রাখা হয়েছে। ফলে এ বছরে অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীসহ ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনায় চরম বিঘ্ন ঘটছে।

দ্বিতীয় পর্বের বিশ্ব ইজতেমায় রাজধানী ঢাকাসহ ১৭ জেলার চার-পাঁচ লাখ এবং আনুমানিক ৯০ দেশের প্রায় সাত হাজার মুসল্লি অংশ নেবে বলে জানিয়েছে আয়োজক কমিটি। ময়দানে জেলাওয়ারি মুসল্লিদের স্থান নির্দিষ্ট করা হয়েছে। প্রথম পর্বের মতো পুরো ময়দান ২৭টি ভাগ করা হয়েছে।

মুসল্লিরা জানায়, মাঠ প্রস্তুতির কাজ আয়োজক কমিটির মুরব্বিরা তদারকি করছেন। বিদ্যুৎ, পানি, প্যান্ডেল তৈরি, গ্যাস সরবরাহ প্রতিটি কাজ আলাদা দলের মাধ্যমে করা হয়েছে। বিদেশি মুসল্লিদের থাকার জন্য মাঠের উত্তর-পশ্চিম পাশে স্থায়ীভাবে কামরা তৈরি করা হয়েছে। মুসল্লিদের জন্য তুরাগ নদ পারাপারের জন্য নদীর সাতটি স্থানে ভাসমান সেতু স্থাপন করা হয়েছে। অতিথিদের স্বাগত জানানোর জন্য ১০টি তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। অজু, গোসল, পয়োনিষ্কাশন ও পানের জন্যে ১২টি গভীর নলকূপের মাধ্যমে প্রতিদিন ঘণ্টায় তিন কোটি ৫৫ লাখ গ্যালন পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। এ ছাড়া নতুন তিনটিসহ বহুতলীয় পাকা দালানে প্রায় চার হাজার ও ১৫৪টি অস্থায়ী টয়লেট স্থাপন করা হয়েছে। নষ্ট ও ক্ষতিগ্রস্ত অজু-গোসলখানা এবং টয়লেটগুলো এরই মধ্যে সংস্কার করা হয়েছে। ময়দানের চাহিদা মোতাবেক ১০০ ড্রাম ব্লিচিং পাউডার সরবরাহ করা হয়েছে। ২৪টি ফগার মেশিনে মশক নিধনের ব্যবস্থা রয়েছে। স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ৪৫টি চিকিৎসাকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিদিন ২৫টি ট্রাকের মাধ্যমে দিন-রাত বর্জ্য অপরাসণ করা হচ্ছে।

বিদেশি মুসল্লির মৃত্যু : অন্যদিকে ইজতেমা ময়দানের বিদেশি মেহমানখানায় অবস্থানরত দক্ষিণ আফ্রিকার মুসল্লি আব্দুর রহমান জুম্বার (৭০) মৃত্যু হয়েছে। তিনি প্রথম পর্বে অংশ নিয়ে ময়দানে অবস্থান করছিলেন।



মন্তব্য