kalerkantho

শ্রমিকের মৃত্যু

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার সাওঘাট এলাকার একটি তুলার কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় পান্তীশী দাস (৩৫) নামের এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। গত রবিবার রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ১৮ দিন জীবনের সঙ্গে যুদ্ধ করে মৃত্যুবরণ করেন এই তরুণী। তাঁর বাড়ি আড়াইজাহারে। তিনি সাওঘাট ঋষিপাড়া এলাকায় নিতাই দাসের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। গত ২৮ ডিসেম্বর বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে ওই তুলার কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে পান্তীশী দাসের বাবা প্রেমান্দ দাস জানান, সাওঘাট এলাকায় রফিকুল মীরের মালিকানাধীন একটি তুলা তৈরির কারখানা রয়েছে। এ কারখানায় প্রায় ৭০ থেকে ৮০ জন শ্রমিক কাজ করে। ২৮ ডিসেম্বর হঠাৎ করে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে কারাখানায় আগুন লাগে। একপর্যায়ে পুরো কারখানায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় তাঁর মেয়ে পান্তীশী দাসসহ আরো দুজন অগ্নিদগ্ধ হয়। পরে তাঁদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। অন্য দুজনের মধ্যে রজনী কান্তি দাসের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, প্রায় ১৫ শতাংশ সরকারি খাল দখল করে তুলার কারখানাটি স্থাপন করা হয়েছে। এর আগেও এ কারখানায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এ বিষয়ে ভুলতা পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক শহিদুল আলম বলেন, ‘এ ধরনের একটি ঘটনার কথা শুনেছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’



মন্তব্য