kalerkantho


সোনারগাঁয় মাসব্যাপী লোকজ উৎসব শুরু

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



সোনারগাঁয় মাসব্যাপী লোকজ উৎসব শুরু

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় মাসব্যাপী লোককারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শিশুশিল্পীদের নৃত্য পরিবেশনা। ছবি : কালের কণ্ঠ

কনে দেখা, গায়েহলুদ, বরযাত্রা, জামাইকে পিঠা খাওয়ানো, গ্রাম্য সালিসের নামে লোকজীবন প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয় মাসব্যাপী লোককারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসব শুরু হয়েছে। আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ মেলা চলবে। বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গতকাল রবিবার উৎসবের উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। এ সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘গ্রামবাংলায় ছড়িয়ে থাকা অবহেলিত লোক ও কারুশিল্পীকে প্রতিভা বিকাশ ও সুযোগ করে দেওয়াই এ মেলার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ইচ্ছা অনুযায়ী শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন সোনারগাঁয় বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন গড়ে তোলেন। জয়নুল আবেদিনের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করার জন্য আমাদের সরকার কাজ করে যাচ্ছে। ইতিহাস ও ঐতিহ্য দেখতে বিদেশি পর্যটকরা পানাম নগরী ও সরদারবাড়িতে আসেন। তাই সরদারবাড়ির আদলে পানাম নগরীতে একটি জাদুঘর নির্মাণ ও সংস্কার করে ঈশা খাঁর রাজধানীর ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা হবে। সোনারগাঁকে একটি পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে। পর্যটকদের জন্য থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থাসহ সব ধরনের সুযোগ করে দেওয়া হবে।’

ফাউন্ডেশনের পরিচালক রবীন্দ্র গোপের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মতিয়ার রহমান, সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনুর ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট সামছুল ইসলাম ভূঁইয়া প্রমুখ।

ফাউন্ডেশনের পরিচালক কবি রবীন্দ্র গোপ তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘বাংলাদেশের লোক ও কারুশিল্পের ঐতিহ্য, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের লুপ্তপ্রায় লোকজ ঐতিহ্যকে পুনরুদ্ধার, সংগ্রহ, সংরক্ষণ, গবেষণা ও প্রদর্শন এ মেলার মূল উদ্দেশ্য। মাসব্যাপী এ মেলায় এবার দেশের পল্লী অঞ্চল থেকে ৬০ জন কারুশিল্পী অংশ নিয়েছেন। তাঁদের জন্য ৩০টি স্টলসহ হস্তশিল্প, পোশাক, স্টেশনারি, কসমেটিকস ও বিভিন্ন প্রকারের খাবারের স্টল মিলিয়ে মোট ১৮০টি স্টল রয়েছে। গ্রামীণ বিভিন্ন খেলার পাশাপাশি বাউল, পালা, জারি-সারিসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের গানের আসর ছাড়াও এবারের মেলায় থাকছে মৃৎশিল্পের বিশেষ প্রদর্শনী।’

মেলায় অংশ নেওয়া যশোরের মণিরামপুর থেকে আসা নকশিকাঁথাশিল্পী মাহফুজা আক্তার জানান, সোনারগাঁয় ফাউন্ডেশন মেলায় প্রায় সাত বছর ধরে আসছেন তিনি। এই মেলায় অন্য মেলার চেয়ে বেশি বেচাকেনা হচ্ছে।

জামদানিশিল্পী সুরাইয়া বেগম জানান, দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত। তাঁদের বোনা জামদানি শাড়ি দেশ-বিদেশের অনেক নামিদামি মানুষ ব্যবহার করে মুগ্ধ হয়েছেন। তাঁরা জামদানি শাড়ি তৈরি করে স্বাবলম্বী হয়েছেন।



মন্তব্য