kalerkantho


রূপগঞ্জে হামলা চালাল মাদক কারবারিরা

একই পরিবারের চারজনকে পিটিয়ে আহত

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৮ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



রূপগঞ্জে মাদক বিক্রিতে বাধা দেওয়ায় স্থানীয় মাদক কারবারিরা একই পরিবারের চারজনকে পিটিয়ে আহত করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রবিবার সকালে উপজেলার চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

আহত মো. নুরুল ইসলাম জানান, চনপাড়া এলাকায় চিহ্নিত মাদক কারবারি কামাল, আবুল, বাশার, ইমরান, আরিফ, বাবু ও শফি দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ট্যাবলেট, মদ, গাঁজা ও ফেনসিডিল বিক্রি করে আসছে। সুস্থ সমাজব্যবস্থার কথা চিন্তা করে নুরুল ইসলাম বিভিন্ন সময় তাদের মাদক বিক্রিতে বাধা দিয়ে আসছেন। এ কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে রবিবার সকালে রামদা, হকিস্টিক ও রড নিয়ে নুরুল ইসলামের বাড়িতে হামলা চালায় উগ্র মাদক কারবারিরা। এ সময় তিনি বাধা দিলে হামলাকারীরা তাঁকে রড দিয়ে এলোপাথাড়ি পেটায়। তাঁর চিৎকারে বাবা আয়েত আলী, মা সামসুন্নাহার, ভাই আব্দুল হক এগিয়ে এলে হামলাকারীরা তাঁদেরও পিটিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘এ ধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ইয়াবা কারবারি আটক

রূপগঞ্জ উপজেলার গোলাকান্দাইল থেকে গতকাল রবিবার দুপুরে এক ইয়াবা কারবারিকে আটক করেছে পুলিশ।

রূপগঞ্জ থানার পরিদর্শক ইসমাইল হোসেন জানান, সাইফুল ইসলাম উপজেলার একজন শীর্ষ ইয়াবা কারবারি। তাকে ৫০০ পিস ইয়াবাসহ আটক করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, গোলাকান্দাইলের শরাফত আলীর ছেলে সাইফুল ইসলাম তার ভগ্নিপতির দাপটে এক যুগ ধরে ইয়াবার কারবার করছে। এ ব্যবসার বদৌলতে আলিশান বাড়ি-গাড়িসহ অঢেল সম্পদের মালিক বনে গেছে। সিমেন্ট ব্যবসার আড়ালে মাদক কারবারি চালিয়ে আসছে সে।

মন্দিরে তিনটি প্রতিমা ভাঙচুর

রূপগঞ্জ উপজেলার ইউসুফগঞ্জ স্কুলসংলগ্ন কালীমন্দিরে শনিবার রাতে তিনটি প্রতিমা ভাঙচুর করা হয়েছে।

মন্দিরের সভাপতি সংগ্রাম চন্দ্র দাস রানা জানান, শনিবার রাতে তিনি মন্দিরে পূজা করে বাড়িতে চলে যান। শনিবার গভীর রাতের যেকোনো সময় দুর্বৃত্তরা মন্দিরে প্রবেশ করে কালী, মহাদেব ও সিংহের প্রতিমা ভাঙচুর করেছে। রবিবার সকালে সভাপতি সংগ্রাম চন্দ্র দাস রানা মন্দিরে পৌঁছে প্রতিমা ভাঙা অবস্থায় মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে পুলিশে খবর দেন।

রূপগঞ্জ থানার পরিদর্শক ইসমাইল হোসেন জানান, এখনো কোনো অভিযোগ পাইনি। বিষয়টি স্পর্শকাতর। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

টাকা না পেয়ে গৃহবধূকে ঘরছাড়া করল শ্বশুরপক্ষ

দাবি করা টাকা না দেওয়ায় গৃহবধূকে পিটিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে শ্বশুরপক্ষের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল রবিবার সকালে রূপগঞ্জ উপজেলার চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্রে। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী গৃহবধূ আছিয়া বেগম।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, এক বছর আগে আমির হোসেনের সঙ্গে আছিয়া বেগমের বিয়ে হয়। তখন তাঁর বাবা নজরুল ইসলাম বরপক্ষকে টাকা, স্বর্ণালংকারসহ দুই লাখ টাকার মালপত্র দেন। বিয়ের কিছুদিন পরই বাবার বাড়ি থেকে এক লাখ টাকা এনে দিতে আছিয়াকে চাপ দিতে থাকে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। গতকাল সকালে তারা ফের চাপ দেয়। এ সময় আছিয়া টাকা এনে দিতে পারবে না বলে জানান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী, শ্বশুর মো. নূর মোহম্মদ, শাশুড়ি আনোয়ারা বেগম, ননদ তানজিলা আক্তার তাঁকে রড দিয়ে পিটিয়ে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়।

রূপগঞ্জ থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’



মন্তব্য