kalerkantho


ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়

ছাত্রের মামলায় শিক্ষককে সমন

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষক রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন আদালত। চাকরির আশ্বাস দিয়ে ১৫ লাখ টাকার ডিস-অনার চেক দিয়ে প্রতারণা করায় কুষ্টিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করেন আল হাদিস অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী শরিফুল ইসলাম। মঙ্গলবার এ মামলায় শিক্ষকের বিরুদ্ধে সমন জারি করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রাবস্থায় ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রুহুল আমিনের সঙ্গে তাঁর ভালো সম্পর্ক গড়ে ওঠে। স্নাতকোত্তরে প্রথম বিভাগে প্রথম হওয়ায় রুহুল আমিন তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক পদে চাকরি দেওয়ার কথা বলেন। এ জন্য তিনি শরিফুলের কাছে ১৫ লাখ টাকা দাবি করেন। পাশাপাশি শিক্ষক রুহুল আমিন চাকরি দিতে না পারলে টাকা ফেরত দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দেন। সেই সূত্র ধরে গত বছরের ১ জুন তিনি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই রুহুল আমিনকে ১৫ লাখ টাকা দেন। কিন্তু চাকরি দিতে ব্যর্থ হন ওই শিক্ষক। বিষয়টি জানাজানি হলে গত বছরের ১২ অক্টোবর অগ্রণী ব্যাংক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় ১৫ লাখ টাকার একটি চেক দেন রুহুল আমিন। ৩১ অক্টোবর ব্যাংকে ওই চেক নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু ওই অ্যাকাউন্টে কোনো টাকা নেই বলে জানায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ আরো জানায়, চেকটি ডিস-অনার হয়েছে। এ ঘটনায় গত ২৬ নভেম্বর শিক্ষক রুহুল আমিনকে আইনি নোটিশ পাঠান শরিফুল ইসলাম। এর পরও টাকা পরিশোধ না করায় মঙ্গলবার আদালতে মামলা করেন তিনি। পরে ওই দিন আদালত রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে সমন জারি করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত রুহুল আমিন বলেন, ‘শরিফুলকে আমি চিনি না। সে যে অ্যাকাউন্টের কথা বলেছে তাও আমার নয়। আমি এ নিয়ে প্রক্টরের কাছে লিখিত দিয়েছি।’

উল্লেখ্য, এর আগে রুহুল আমিনের নিয়োগ বাণিজ্যের অডিও ফাঁস হয়। এ নিয়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে সংবাদ প্রকাশ হয়। ওই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট তাঁকে প্রশাসনিক সব কাজ থেকে অব্যাহতি দেয়। একই সঙ্গে দুই বছরের মধ্যে তিনি কোনো পদোন্নতি ও ইনক্রিমেন্ট পাবেন না বলে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।


মন্তব্য