kalerkantho


নাটোরে চাঁদাবাজি বন্ধ, আটক ২

নাটোর প্রতিনিধি   

২১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



অবৈধ সংগঠনের নামে নাটোরে ইজি বাইকচালক-মালিকদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় অবশেষে বন্ধ হয়েছে। এতে চালক-মালিকদের মধ্যে স্বস্তি ফিরেছে। আর চাঁদা না দেওয়ার জন্য পৌরসভা থেকে মাইকিং করা হয়েছে। এদিকে সোমবার সকালে চাঁদা তোলার সময় দুই চাঁদাবাজকে আটক করে পুলিশে দিয়েছেন ইজি বাইকচালক-মালিকরা। তারা হচ্ছে শহরের বেসপাড়া এলাকার জয়নাল খানের ছেলে আব্দুল জলিল এবং বড়হরিশপুর এলাকার মৃত সাবেদ আলীর ছেলে তাহের আলী। এর আগে রবিবার অবৈধ সংগঠনের নামে চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও থানা ঘেরাও করে বিক্ষুব্ধ ইজি বাইকচালক-মালিকরা।

ইজি বাইকচালক ও মালিকরা জানান, নাটোর সদর উপজেলা অটোবাইকচালক ও মালিক সমিতির নামে প্রতি মাসে অন্তত ২০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করে আসছিল ভুঁইফোড় অবৈধ সংগঠনটি। শহরের সাতটি স্পটে লোক নিয়োগ করে চাঁদার টাকাগুলো আদায় করা হতো। অনেক সময় চাঁদা না দিলে সংগঠনের লোকজনের হাতে মারধরের শিকারও হতে হয়েছে চালকদের। নামসর্বস্ব ওই সংগঠনের আইনি কোনো ভিত্তি না থাকলেও প্রতিদিন শহরে চলাচল করা অন্তত তিন হাজার ইজি বাইক থেকে মাসে পাঁচ থেকে ছয় লাখ টাকার চাঁদা আদায় হয়ে আসছিল।

জানা গেছে, অবৈধ সংগঠনটি শহরের যে সাতটি স্পটে চাঁদা তুলে আসছিল, সোমবার সকাল থেকে সংগঠনের কাউকে চোখে পড়েনি। কোনো ইজি বাইকচালকও চাঁদা দেয়নি।

এদিকে, অবৈধ সংগঠনের কোনো সদস্যদের চাঁদা না দেওয়ার জন্য নাটোর পৌরসভা থেকে মাইকিং করেছে কর্তৃপক্ষ। সোমবার সকালে শহরের বিভিন্ন স্থানে এই মাইকিং করা হয়।

এ ব্যাপারে পৌর মেয়র উমা চৌধুরী জলি বলেন, অবৈধ সংগঠনের সদস্যরা দীর্ঘদিন ধরে লাখ লাখ টাকা চাঁদা তুলছিল। ইজি বাইকচালক-মালিকদের অনুরোধে অবৈধ সংগঠনের সদস্যদের চাঁদা না দেওয়ার জন্য শহরে মাইকিং করা হয়েছে। কেউ যদি আবারও চাঁদা তোলার চেষ্টা করে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 


মন্তব্য