kalerkantho


বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উদ্‌যাপিত

সাঘাটায় আ. লীগে সংঘর্ষ, আহত ১০

গাইবান্ধা প্রতিনিধি   

১৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



সাঘাটায় আ. লীগে সংঘর্ষ, আহত ১০

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলা সদর বোনারপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনের অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। এতে এক পক্ষের নেতাকর্মীরা রামদা হাতে প্রতিপক্ষকে ধাওয়া করে। ছবিটি গতকাল তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলা সদর বোনারপাড়ায় গতকাল শুক্রবার বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ডেপুটি স্পিকারের উপস্থিতিতে ওই সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৮তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবসের অনুষ্ঠান আয়োজন করে উপজেলা প্রশাসন। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া। শুরুতে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নাজমুল হুদা দুদু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ বাবুসহ অন্যদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের পর শিশুদের নিয়ে কেক কাটেন প্রধান অতিথি। এরপর তাঁর নেতৃত্বে শোভাযাত্রা বের করা হয়। পরে আলোচনাসভা শুরু হলে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি মাহমুদ হাসান রিপনের লোকজন ফুল দেওয়ার জন্য মিছিল নিয়ে সমবেত হয়। এ সময় উভয় পক্ষে বাগিবতণ্ডা ও হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে দুই পক্ষের লোকজন রামদা, লাঠিসোঁটা নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ বাবু বলেন, হামলায় উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নাসিরু আলম স্বপনসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

নিজেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দাবি করে ওয়ারেছ আলী প্রধান অভিযোগ করেন, তাঁর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দিয়ে ফেরার সময় ডেপুটি স্পিকারের লোকজন তাদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় তিনিসহ তাঁর পক্ষের অনেকেই আহত হয়।

সাঘাটা থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করা হয়। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উজ্জ্বল কুমার ঘোষ জানান, অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা অনুষ্ঠানে প্রভাব ফেলেনি।

এ ব্যাপারে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, উপজেলা প্রশাসনের এই অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথি ছিলেন। আলোচনার শেষ পর্যায়ে কিছু উচ্ছৃঙ্খল লোক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করে। এ সময় উপস্থিত জনতা তাদের প্রতিরোধ করে। পরে তারা ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর পরিকল্পিতভাবে হামলা চালায়। তাতে বেশ কয়েকজন আহত হয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তাঁর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়।


মন্তব্য