kalerkantho


ব্রাহ্মণবাড়িয়া

কনসালট্যান্টকে ‘আপা’ বলায় ছাত্রীকে থাপ্পড়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালের এক কনসালট্যান্টকে আপা বলায় নার্সিং ইনস্টিটিউটের এক শিক্ষার্থীকে থাপড় দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে তাঁর সহপাঠীরা অভিযুক্ত চিকিৎসকের অপসারণ দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে হাসপাতালে বিক্ষোভ করেন।

কর্তৃপক্ষ দুপুরে বিষয়টি ‘মিটিয়ে’ ফেলার পর শিক্ষার্থীরা কর্মসূচি স্থগিত করেন। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত চিকিৎসকের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া নার্সিং ইনস্টিটিউটের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী তানজিনা আক্তার গত বুধবার সদর হাসপাতালের অস্ত্রোপচার কক্ষে (ওটি) থাকা কনসালট্যান্ট (গাইনি) ডা. ফৌজিয়া আক্তারকে ‘আপা’ বলে সম্বোধন করেন। এতে তিনি মনোক্ষুণ্ন হয়েছেন বুঝতে পেরে তাৎক্ষণিকভাবেই তাঁর কাছে ক্ষমা চান তানজিনা। এ সময় তানজিনাকে থাপড় মারেন ডা. ফৌজিয়া। তখন তানজিনা কাঁদতে কাঁদতে ওটি থেকে বেরিয়ে যান।

বিক্ষুব্ধরা জানান, ডা. ফৌজিয়া নার্সিং ইনস্টিটিউটে ক্লাস নেন। অন্যদিকে শিক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে শিক্ষার্থীদেরও হাসাপাতালে সেবা দিতে হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত দ্বিতীয় বর্ষের কোনো ক্লাস নেননি ডা. ফৌজিয়া।

যে কারণে তানজিনা তাঁকে চিনতে পারেননি। পরে ডা. ফৌজিয়া শিক্ষক বুঝতে পেরে তানজিনা তাঁর কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন।

এ ব্যাপারে গতকাল সদর হাসাপাতালের তত্ত্বাবধায়ক মো. শওকত হোসেন বলেন, ‘শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আমরা আলোচনায় বসে সেটি মীমাংসা করে দিয়েছি। ডা. ফৌজিয়া ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। ’ তবে এ বিষয়ে ডা. ফৌজিয়ার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। গতকাল বিকেলে তাঁর মোবাইল নম্বরে বেশ কয়েকবার কল করে ও মেসেজ পাঠিয়েও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।


মন্তব্য