kalerkantho


বাগেরহাটে গৃহবধূর পোড়া লাশ

বাগেরহাট প্রতিনিধি   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার ঘষিয়াখালী গ্রাম থেকে অগ্নিদগ্ধ এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের অভিযোগ, সোমবার রাতে তাঁকে হত্যার পর আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

নিহত নূপুর বেগম (২২) সোলায়মান শরীফের স্ত্রী। পুলিশ জড়িত সন্দেহে শ্বশুর অলিউর শরীফকে (৫২) আটক করেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

নূপুরের বাবা নাছির জমাদ্দার জানান, প্রায় তিন বছর আগে তাঁরা পারিবারিকভাবে ফুলহাতা গ্রামের রাজীবের সঙ্গে নূপুরের বিয়ে দেন। বিয়ের পর সোলায়মান পিছুু নেন নূপুরের। বিষয়টি তাঁরা জানতে পেরে সোলায়মানকে সতর্ক করেন এবং তাঁর বাবাকে বিষয়টি জানানো হয়। তাতে কোনো কাজ হয়নি। সোলায়মান গত বছর মার্চে নূপুরকে বিয়ে করেন। ভেঙে যায় প্রথম সংসার।

সোলায়মানের মা-বাবা এ বিয়ে মেনে নিতে পারেননি। বিয়ের পর নানাভাবে নির্যাতন চালানো হয়েছে তাঁকে। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে শ্বশুরবাড়ি থেকে কয়েকবার বাড়ি চলে আসেন মেয়ে। তাতেও কোনো ফল হয়নি। মেয়ে নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা পেতে তাঁর স্বামীকে নিয়ে ঢাকায় চলে যেতে চেয়েছিলেন। এতে করে সোলায়মান এবং তাঁর মা-বাবা আরো ক্ষিপ্ত হন। শেষ পর্যন্ত মেয়েকে তাঁরা হত্যা করে শরীরে আগুন ধরিয়ে দেন।

মোরেলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) তারক বিশ্বাস বলেন, ‘সোমবার রাতে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখি অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় লাশের মাথা মাটিতে এবং পায়ের অংশ খাটের ওপর রয়েছে। বাড়িতে কোনো লোকজন নেই। গ্রামের মানুষ জড়ো হয়েছিল। ’

মোরেলগঞ্জ থানার ওসি জানান, পরিকল্পিতভাবে তাঁকে হত্যা করা হয়। আগুনে পুড়ে মারা গেছে—এমন প্রচার করার জন্য হত্যার পর তাঁর শরীরে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। আগুনে পরনের শাড়ি এবং শরীরের বিভিন্ন অংশ পুড়ে গেছে।


মন্তব্য