kalerkantho


সিংগাইর

যুবলীগ সম্পাদক হয়েই রমিজ দখলবাজ

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



যুবলীগ সম্পাদক হয়েই রমিজ দখলবাজ

মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব নেওয়ার ১৫ দিনের মাথায় মো. রমিজ উদ্দিন একজনের দোকানঘর দখল করে নিয়েছেন। রমিজ উদ্দিন বলেন, ওই জমি লিজ নেওয়ার জন্য তিনি আবেদন করেছেন। আর সিংগাইর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বলছেন, আবেদন করেই কেউ জমি দখল করতে পারেন না। এটা বেআইনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৩০ বছর আগে সিংগাইর বাজারে ২ শতাংশ খাসজমি চান্দিনা ভিটা হিসেবে লিজ পান বাদশা মিয়া। সেখানে তিনি দোকানঘর নির্মাণ করে ব্যবসা করে আসছিলেন। মৃত্যুর পর তাঁর ছেলে দলিল উদ্দিন এর দখল পান। সম্প্রতি তিনি দোকানঘরটি সংস্কার করেন। এর মধ্যে গত ১ মার্চ সিংগাইর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক তালা ভেঙে দোকানের দখল নেন। সেখানে তিনি নতুন তালা লাগিয়ে নিজের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান সোনিয়া এন্টারপ্রাইজের সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেন।

দলিল উদ্দিনের ছেলে নাজমুল হক জানান, দখল নেওয়ার পর থেকে রমিজউদ্দিন তাঁর লোকজনকে দিয়ে ঘর পাহারা দেন।

বিষয়টি বাজার ব্যবসায়ী সমিতিকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। তাঁর বাবা অসুস্থ থাকায় কয়েক বছর ধরে জমির খাজনা দেওয়া হয়নি। খাজনা দেওয়ার জন্য আবেদন করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

গত সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ওই দোকানে ছড়ানো-ছিটানো কয়েকটি চেয়ার আর একটি টেবিল। বেশ কয়েকজন যুবক বসে আড্ডা দিচ্ছে। দোকানে মালামালের মধ্যে রয়েছে পাঁচ বস্তা ভুসি। দোকানের উল্টো দিকে পান-বিড়ির দোকানদার মহম্মদ জালাল জানান, কয়েক দিন আগে রমিজ উদ্দিন ও তাঁর লোকজনকে তালা ভেঙে দোকানের পজিশন নিতে দেখেছেন। একই কথা জানান পাশের খোন্দকার বুক ডিপোর কর্মচারী ফরহাদ উদ্দিন ও আকবর ব্রাদার্স নামের চালের দোকানের ম্যানেজার আবদুল হালিম। তাঁরা জানান, এত দিন এ দোকানের মালিক বলতে দলিল উদ্দিনকেই জানতেন। কিন্তু রমিজ উদ্দিন কিভাবে মালিক হয়েছেন তা তাঁদের জানা নেই। তাঁরা বলেন, এখন এ দোকানে রমিজ উদ্দিনের লোকজন নিয়মিত বসে আড্ডা দেয়।

সিংগাইর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. বারেক মিয়া জানান, দোকান দখল করে নেওয়ার বিষয়ে একটি অভিযোগ তিনি পেয়েছেন। দু-এক দিনের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে মিটিং ডাকা হবে। তিনিও জানান, এত দিন ওই দোকানের মালিক হিসেবে দলিল উদ্দিনকেই জানতেন।

যুবলীগ নেতা রমিজ উদ্দিনকে খুঁজে পাওয়া গেল সিংগাইর উপজেলা তহসিল অফিসে। জানালেন, একটি জমি লিজ পাওয়ার আবেদনের বিষয়ে খোঁজখবর নিতে এসেছেন। দোকানঘরে সাইনবোর্ড টানানোর বিষয়টি স্বীকার করে তিনি জানান, ওই জমি বরাদ্দ পাওয়ার জন্য তিনি আবেদন করেছেন। আগে যাদের নামে ওই জমি বরাদ্দ ছিল, তারা দীর্ঘদিন ধরে খাজনা পরিশোধ করেনি। তাই তিনি দখলে নিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে তিনি কোনো বেআইনি কাজ করেননি।

১৪ দিন আগে দখল হলেও এ সম্পর্কে কিছু জানেন না বলে সিংগাইর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এলিনা আক্তার দাবি করেন। লিজ পাওয়ার জন্য রমিজ উদ্দিনের কাছ থেকে সোমবার একটি আবেদন পেয়েছেন বলে তিনি জানান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলের একাধিক নেতা জানান, গত ১৫ ফেব্রুয়ারি সম্মেলনে সংসদ সদস্যের ইচ্ছায় রমিজ উদ্দিনকে উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদটি দেওয়া হয়েছে। অথচ ১৫ দিনের মাথায় দোকান দখল করে তিনি বিতর্কের সৃষ্টি করেছেন। এর আগেও বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য ছাত্রলীগ থেকে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। কিন্তু এখন এমপির ঘনিষ্ঠ হওয়ায় কেউ তাঁর বিরুদ্ধে কিছু বলার সাহস পাচ্ছে না। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাজেদ খান বলেন, তিনি বিষয়টি জানেন না। এমন ঘটনা ঘটে থাকলে তদন্ত করে সত্যতা পেলে তাঁর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য