kalerkantho


শ্যামনগরে হাঙ্গামায় পুলিশসহ আহত ১৭

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



সাতক্ষীরার শ্যামনগরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ১৩ পুলিশ সদস্যসহ ১৭ জন আহত হয়।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুর রহিমসহ ১৫ জনকে আটক করেছে। গতকাল রবিবার বিকেলে শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

থানার পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে জামায়াত সমর্থিত কৈখালী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান শেখ আব্দুর রহিম ও সাবেক চেয়ারম্যান রেজাউল ইসলামের ঘনিষ্ঠ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলছিল। গতকাল বিকেলে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। খবর পেয়ে থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করে। এ সময় উত্তেজিত জনতা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়ে। পুলিশও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বেধড়ক লাঠিপেটা করে উভয় পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এতে পুলিশের উপপরিদর্শক আরিফ, নাসির ও ফনিভূষণসহ ১৩ পুলিশ সদস্য আহত হন। পরে ঘটনাস্থল থেকে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেনসহ ১৭ জনকে আটক করা হয়।

এ ব্যাপারে আটক আওয়ামী লীগ নেতা আবুল হোসেনের পক্ষের লোকজন জানায়, বর্তমান চেয়ারম্যান তাঁর পক্ষের লোকদের ওপর জামায়াত-শিবিরের লোকজন লেলিয়ে দিয়ে এলাকার পরিস্থিতি অশান্ত করার চেষ্টা করেছেন।

বর্তমান চেয়ারম্যানের নেতাকর্মীরা জানায়, এলাকায় জামায়াত-শিবিরসহ শান্তিপ্রিয় মানুষদের গ্রেপ্তার করে বাণিজ্য করার জন্য আওয়ামী লীগ নেতা পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনার জন্ম দিয়েছেন।


মন্তব্য