kalerkantho


স্কুলের আমন্ত্রণপত্রে নাম নেই

গোয়ালন্দে অনুষ্ঠানমঞ্চে মেয়রভক্তদের আগুন

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার রিয়াজ উদ্দিনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানমঞ্চে আগুন দেওয়া হয়েছে। মঞ্চের অংশবিশেষ পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

গ্রামের লোকজন জানান, অনুষ্ঠানে দাওয়াত না করায় মেয়র অনুসারীরা হুমকির পর রবিবার ভোরে আগুন দিয়েছে।

জানা গেছে, গত শনিবার বিকেলে স্থানীয় এক ডেকোরেটরের মাধ্যমে মঞ্চ তৈরিসহ রঙিন কাগজের পতাকায় বিদ্যালয় মাঠ সাজানো হয়। এ দিকে অনুষ্ঠানের দিন গতকাল ভোর ৩টার দিকে অজ্ঞাতপরিচয় একদল দুর্বৃত্ত মঞ্চে আগুন লাগিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। গতকাল সকালে বিষয়টি টের পেয়ে কর্তৃপক্ষ গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশকে জানায়। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সহসভাপতি মো. শামীম মৃধা জানান, পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ বি এম নুরুল ইসলামকে প্রধান অতিথি এবং উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাকে বিশেষ অতিথি করা হয়। আমন্ত্রণপত্রে গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র শেখ মো. নিজামের নাম না থাকায় তাঁর (মেয়র) অনুসারী কয়েকজন ক্ষুব্ধ ছিল। অনুষ্ঠানের দুই দিন আগে উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক সদস্য (মেয়রের আত্মীয়) আব্দুস সামাদ কমিটির সভাপতিকে গালমন্দ করেন। এদিকে অনুষ্ঠানের আগের দিন গত শনিবার সকালে পৌর মেয়রের অন্য দুই অনুসারী বক্কার ও ইব্রাহিমের নেতৃত্বে এলাকার কয়েকজন যুবক ক্যাম্পাসে আসে। তারা অনুষ্ঠান বন্ধ রাখার জন্য উপস্থিত শিক্ষকসহ সভাপতিকে হুমকিধমকি দেয়।

শেষে ‘মেয়রের নাম ছাড়া কিভাবে স্কুলের অনুষ্ঠান করেন, তা দেখা যাবে’ বলে তারা ক্যাম্পাস ছেড়ে চলে যায়। রিয়াজ উদ্দিনপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আলাউদ্দিন খান বলেন, ‘আর মাত্র পাঁচ দিন পর চাকরি থেকে আমি অবসরে যাচ্ছি। তাই এ ব্যাপারে কারো বিরুদ্ধে মুখ খুলতে চাচ্ছি না। ’ তবে মঞ্চে অগ্নিসংযোগ করা সত্ত্বেও রবিবার সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে করা হয় বলে তিনি জানান।

গোয়ালন্দ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আব্দুল মালেক বলেন, ‘বিদ্যালয়ের অনুষ্ঠান মঞ্চে আগুন লাগানো অত্যন্ত দুঃখজনক ও নিন্দনীয়। বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেব। ’

গোয়ালন্দ ঘাট থানার (ওসি তদন্ত) মো. সহিদুল ইসলাম বলেন, ‘অতিথি নিয়ে বিরোধের জের ধরে মঞ্চে আগুন লাগানো হতে পারে। লিখিত অভিযোগ পাইনি। ’ গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র শেখ মো. নিজামের মোবাইল ফোনে গতকাল বিকেল ৫টায় কালের কণ্ঠ অফিস থেকে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি। এ কারণে তাঁর বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।


মন্তব্য