kalerkantho


দুই শিশুর লাশ

মানিকগঞ্জে দুই মামলা, গ্রেপ্তার ৫

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি   

১২ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



মানিকগঞ্জের শিবালয় ও ঘিওর উপজেলা থেকে নিখোঁজের পর দুই শিশুর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় দুটি মামলা হয়েছে। পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে পাঁচজনকে। দুটি মামলাতেই অভিযোগে বলা হয়, জমি নিয়ে বিরোধের জেরে শিশু দুটিকে হত্যা করা হয়েছে।

শিবালয়ের নেহালপুর গ্রামের বাসু শেখের ছেলে সাব্বির হোসেনের (৮) লাশ গত শুক্রবার সকালে উদ্ধার করা হয় যমুনা নদীর চর থেকে। আগের দিন বিকেল থেকে সে নিখোঁজ ছিল। লাশ উদ্ধারের পর সাব্বিরের দাদি আয়শা বেগম প্রতিবেশী ইব্রাহিম ও ঝন্টুকে অভিযুক্ত করে মামলা করেন। তাঁরা দুজন ভাই। বাসু শেখ জানান, তাঁদের জমিতে ঘর তুলতে ইব্রাহিমদের বাধা দিলে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এর জেরে কিছুদিন আগে ইব্রাহিমরা মারধর করে বাসু শেখের মা ও বোনকে। এ ঘটনায় শিবালয় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। তখন থেকে ইব্রাহিমরা হুমকি দিয়ে আসছিল।

বাসু শেখের দাবি, থানায় অভিযোগ করার কারণেই তাঁর একমাত্র ছেলে সাব্বিরকে হত্যা করা হয়েছে।

শিবালয় থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানান, লাশ উদ্ধারের দিনই ইব্রাহিম ও ঝন্টুকে আটক করা হয়েছিল। পরে তাঁদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সাব্বির হত্যায় তাঁদের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

এদিকে ঘিওর উপজেলার বৈকুণ্ঠপুর গ্রামের শহীদুল ইসলামের ছেলে দুরন্ত (৭) নিখোঁজ হয় গত বৃহস্পতিবার বিকেলে। পরের দিন তার গলায় কাপড় পেঁচানো লাশ পাওয়া যায় বাড়ির পেছনে একটি বাঁশঝাড়ে। শহীদুল ইসলাম জানান, জমি নিয়ে প্রতিবেশী ইউসুফ আহম্মদের সঙ্গে তাঁদের বিরোধ ছিল। এর জেরেই দুরন্তকে হত্যা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দুরন্তর নানা ইউসুফ আলী ঘিওর থানায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন, চায়না ও পলিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইউসুফ ও ঠান্ডু নামের দুজন পলাতক।

ঘিওর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, গ্রেপ্তার তিনজনকে আদালতে পাঠিয়ে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে।


মন্তব্য