kalerkantho


আজমিরীগঞ্জে স্কুলের জায়গা প্রভাবশালীর দখলে

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি   

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বিজয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জায়গা অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন এক প্রভাবশালী। ফলে ওই জায়গায় নির্মিত উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে যাতায়াতকারী শিক্ষক-শিক্ষিকাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা মাঠের অভাবে খেলাধুলা করতে পারছে না।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আজরিমীগঞ্জ পৌর এলাকার শরাফনগরে (গঞ্জের হাটি) বিদ্যালয়ের দুই শতাংশ জায়গা দখল করেছেন একই এলাকার প্রভাবশালী কুমুদ রঞ্জন চৌধুরী। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ঘর নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। এ কারণে খেলাধুলা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। জায়গা দখলমুক্ত করতে গিয়ে কুমুদ রঞ্জনের মিথ্যা মামলা ও হয়রানির শিকার হয়েছেন এলাকার লোকজন। এদিকে জায়গাটি উদ্ধারের জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির নেতা, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সময় আন্দোলন করেছে। এ ছাড়া ২০১৫ সালে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জায়গাটি দখলমুক্ত করার জন্য নির্দেশ দেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ দখলমুক্ত করতে গেলে কুমুদ রঞ্জন বাধা দেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

পরে সংঘর্ষের আশঙ্কায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পিছু হটে।

সম্প্রতি জায়গা দখলমুক্ত করার জন্য বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শিখা চক্রবর্তী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে আবেদন করেন। ইউএনও জায়গাটি দখলমুক্ত করে দেওয়ার জন্য কুমুদ রঞ্জনকে নির্দেশ দেন। কিন্তু কুমুদ রঞ্জন এ নির্দেশকে তোয়াক্কা করেননি।

দখলকারী কুমুদ রঞ্জন চক্রবর্তী বলেন, ‘বিদ্যালয়ের জমির দাতা কালি প্রসন্ন চক্রবর্তী আমাকে দান করেছেন। এর পর থেকে আমি বসবাস করছি। তবে আমার কোনো কাগজপত্র নেই। ’

আজমিরীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মাহফুজ মিয়া বলেন, ‘বিদ্যালয়ের জায়গা দীর্ঘদিন ধরে কুমুদ রঞ্জন অবৈধভাবে দখল করে রেখেছেন। আমরা দখলমুক্ত করার চেষ্টা করছি। যেহেতু উপজেলা প্রশাসন উদ্যোগ নিয়েছে, আমরা আশা করছি, দ্রুত জায়গাটি উদ্ধার করতে পারব। ’

আজমিরীগঞ্জ ইউএনও টিটু খীসা বলেন, ‘আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে কুমুদ রঞ্জনকে তাঁর নির্মিত ঘর ভেঙে ফেলার জন্য নির্দেশ দিয়েছিলাম। কিন্তু তিনি অদ্যাবধি দখল ছাড়েননি। ’


মন্তব্য