kalerkantho

সুনামগঞ্জ ছাত্রলীগ

সম্মেলন হচ্ছে না

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি   

১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



বারবার ঘোষণা দিয়েও সম্মেলন করতে না পারায় সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের ওপর চটেছে কেন্দ্রীয় ও তৃণমূল ছাত্রলীগ। ক্ষুব্ধ কেন্দ্রীয় নেতারা জেলা কমিটির নেতাদের ব্যর্থ আখ্যা দিয়ে ঢাকা থেকেই কমিটি দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন। ফলে কেন্দ্র ঘোষিত আজ ১১ মার্চ শনিবার জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন হচ্ছে না।

এদিকে সাধারণ নেতাকর্মীরা সম্মেলন নিয়ে আগ্রহী-উচ্ছ্বসিত থাকলেও বর্তমান কমিটির নেতাদের পদ চলে যাওয়ার ভয়ে নানা ছুতায় কেন্দ্র ঘোষিত সম্মেলন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেনি। তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, বহুধা বিভক্ত আওয়ামী লীগের কোন্দলের জের ধরে বিভক্ত ছাত্রলীগের পদপ্রত্যাশীদের নিয়ে ঢাকা থেকেই কেন্দ্রীয় নেতাদের ম্যানেজ করে শিগগিরই সমঝোতার কমিটি আসছে।

জেলা ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালের অক্টোবরে ফজলে রাব্বী স্মরণকে সভাপতি ও রফিক আহমেদ চৌধুরীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১০ সদস্যের কমিটি গঠিত হয়। ২০১৩ সালে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যদের বহাল রেখে পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। গত বছর শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে কমিটি স্থগিত করে সম্মেলন করার নির্দেশনা দিলেও নির্ধারিত সময়ে সম্মেলন করতে ব্যর্থ হয় জেলা ছাত্রলীগ। সর্বশেষ গত ১৮ ফেব্রুয়ারি লিখিতভাবে আগামীকাল ১১ মার্চ জেলা সম্মেলনের নির্দেশনা দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। কিন্তু আজও সম্মেলন হচ্ছে না।

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আজ ১১ মার্চ সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা দিয়ে জেলা কমিটিকে সম্মেলন প্রস্তুতির নির্দেশনা দেয়।

এ খবরে উচ্ছ্বসিত হয় নতুন নেতৃত্বে আসতে আগ্রহী নেতাকর্মীরা। ১৫ দিন ধরে পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীদের মধ্যে দেওয়ান জিসান এনায়েত রেজা চৌধুরী, ইশতিয়াক আলম পিয়াল, হাবিব হাসান তপু, মাসকাওয়াত জামান ইন্তি, দীপঙ্কর কান্তি দে, কিরণ, এনামুল হক রোমেন চৌধুরী পৃথকভাবে শহরে আনন্দ মিছিল করেন। বিভিন্ন উপজেলায়ও সম্মেলনকে স্বাগত জানিয়ে মিছিল করা হয়। প্রায় এক মাস আগে সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা দেওয়া হলেও জেলা কমিটি কোনো প্রস্তুতিই নেয়নি। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে জেলা সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আজকের সম্মেলন হচ্ছে না। কারণ হিসেবে তিনি স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের জানিয়েছেন, সুনামগঞ্জের একটি আসনে উপনির্বাচন ও হাওরের ফসল নিয়ে কৃষকরা শঙ্কিত থাকায় সম্মেলন আয়োজনের উপযোগী পরিস্থিতি নেই।

ছাত্রলীগ নেতা আরিফ উল আলম বলেন, বর্তমান কমিটি টালবাহানা করে সম্মেলন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তা ছাড়া পদপ্রত্যাশীরা বিভিন্ন স্থান থেকে তদবির করে ঢাকা থেকেই কমিটি ঘোষণার চিন্তা করছে। এ অবস্থায় মাঠে যাঁরা রাজনীতি করেন, রাজপথে দলীয় প্রতিটি কর্মসূচিতে সোচ্চার থাকেন, সেই উৎসাহী নেতারা হতাশ হয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পর আমরা প্রতিদিন সুনামগঞ্জে কেন্দ্রীয় নেতাদের স্বাগত জানিয়ে সম্মেলন সফলের লক্ষ্যে আনন্দ মিছিল করেছি। ’

জেলা ছাত্রলীগ নেতা জিসান এনায়েত রেজা চৌধুরী বলেন, ‘বর্তমান কমিটি ব্যর্থ হওয়ায় তারা বারবার সম্মেলন পিছিয়েছে। তারা আমাদের নতুন নেতৃত্ব তৈরির পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। ’

বৃহস্পতিবার রাতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বী স্মরণ বলেন, ‘এখন সম্মেলনের পরিস্থিতি নেই। তাই কেন্দ্রকে আমরা পিছিয়ে দিতে বলেছি। ’

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন বলেন, ‘সম্মেলন হবে কি না আপনারা স্মরণ-রফিককে জিজ্ঞেস করেন। তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল সম্মেলনের আয়োজন করতে। তারা যদি সম্মেলন করতে না পারে, তাহলে ঢাকা থেকে শিগগিরই কমিটি দেওয়া হবে। ’


মন্তব্য