kalerkantho


নারায়ণগঞ্জে যুবদলের মিছিলে পুলিশের বাধা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জে যুবদলের মিছিলে পুলিশের বাধা

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়ার প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জ যুবদল মিছিলে বের করলে গতকাল দুপুরে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়ার প্রতিবাদে ডাকা নারায়ণগঞ্জ যুবদলের পৃথক মিছিলে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে বাধা দিয়েছে পুলিশ।

নারায়ণগঞ্জ শহরের দেওভোগ এলাকায় আর্ট কলেজের সামনে থেকে জেলা যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি ডিআইটি আলী আহাম্মদ চুনকা পৌর মিলনায়তনের সামনে এলে পুলিশ বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে জেলা যুবদলের সভাপতি মোশারফ হোসেনসহ অন্তত পাঁচজন আহত হয়। পরে পুলিশ জেলা যুবদলের ব্যানার কেড়ে নিয়ে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহপ্রচার সম্পাদক মো. রুহুল আমিন শিকদার ও জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম মুকুল প্রমুখ।

এদিকে মহানগর যুবদলের মিছিলকারীদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। এ সময় আটকের চেষ্টা করা হয় মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে। ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় নারায়ণগঞ্জ শহরের মণ্ডলপাড়ায় এ মিছিল বের হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জিমখানা থেকে মিছিল মণ্ডলপাড়ায় এলে পুলিশ বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে।

নেতাকর্মীরা সেখানে সমাবেশ করার চেষ্টা করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এ সময় দুই পক্ষে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। পুলিশ ব্যানার কেড়ে নেয়। আটক করার চেষ্টা করে মহানগর আহ্বায়ক খোরশেদকে। বাধা দিতে গেলে আইনজীবী নেতা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর শার্টের কলার চেপে ধরে পুলিশ। এ ছাড়া পুলিশের একজন কনস্টেবল তার সঙ্গে থাকা শটগান দিয়ে আবদুল হামিদকে পেটানোর চেষ্টা করলে হাত থেকে পড়ে কিছু অংশ ভেঙে যায়। নেতাকর্মীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয় পুলিশের। একপর্যায়ে নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। পুলিশের ধাওয়ায় আহত হন খোরশেদ, যুবদল নেতা জুলহাস, মনির, আল আমিন, ইউনুছ খান বিপ্লব, পিন্টু, আফতাব, সুমন, শহীদ ও ভাসানী।

কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ মিছিল করার সময় পুলিশ বিনা উসকানিতে আমাদের ওপর হামলে পড়ে। অহেতুক লাঠিচার্জ করে অস্ত্র দিয়ে নেতাকর্মীদের পেটায়। আহত হয় আমাদের অন্তত ১০ জন নেতাকর্মী। ’

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি আসাদুজ্জামান বলেন, ‘জনস্বার্থ বিঘ্নিত করে সমাবেশ করার সময় রাস্তা থেকে যুবদল নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। ’


মন্তব্য