kalerkantho


কারখানা বন্ধের নোটিশ

গাজীপুরে বিক্ষোভ, গুলি

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



গাজীপুরের বোর্ডবাজার এলাকায় গার্মেন্ট বন্ধের প্রতিবাদে ও বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেছে। একপর্যায়ে শ্রমিকরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করলে পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিপেটা এবং ফাঁকা গুলি ও টিয়ার গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে। এতে তিন পুলিশসহ ১০-১২ শ্রমিক আহত হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, বোর্ডবাজারের সাইনবোর্ড এলাকার ইস্ট ওয়েস্ট ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের রোমানা ফ্যাশনের শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ না করে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে কর্তৃপক্ষ কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের নোটিশ দিয়ে মূল গেটে তালা লাগিয়ে দেয়। কারখানাটিতে প্রায় আট হাজার শ্রমিক কাজ করে। শ্রমিকরা সকাল ৮টার দিকে কাজে যোগ দিতে এসে কারখানা বন্ধের নোটিশ দেখে বিক্ষোভ শুরু করে। একপর্যায় তারা কারখানার সামনের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে। এতে ওই মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তাদের রাস্তা থেকে সরাতে গেলে পুলিশ-শ্রমিকের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৩০-৩৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি, টিয়ার গ্যাসের শেল নিক্ষেপ ও লাঠিপেটা করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

কারখানার উপমহাব্যবস্থাপক নিজাম উদ্দিন জানান, শ্রমিকরা বুধবার কারখানার দরজা-জানালার কাচ ভাঙচুর করেছে। এসব কারণে কারখানা অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। শিগগিরই তাদের পাওনা পরিশোধ করা হবে।

ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শ্রমিক জানায়, আগে ৮ তারিখে তাদের বেতন দেওয়া হতো। কিন্তু বুধবার বেতন আগামী ১৬ মার্চ পরিশোধের কথা জানানো হলে শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়। এ জন্য রাতের শিফটের শ্রমিকরা কারখানায় গেলেও কাজ থেকে বিরত থাকে। রাত ১০টার দিকে কর্তৃপক্ষ বৃহস্পতিবার বেতন দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেয়। কিন্তু সকালে কাজ করতে এসে দেখা যায় গেটে তালা আর কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের নোটিশ টানানো। পুলিশের লাঠিপেটা ও টিয়ার গ্যাসের শেলে ৮-৯ জন শ্রমিক আহত হয়েছে। তারা আরো জানায়, বেতনের টাকায় তারা ঘরভাড়া, দোকান বাকিসহ ছেলেমেয়ের লেখাপড়ার খরচ পরিশোধ করে। সময়মতো এসব টাকা পরিশোধ করতে না পারলে তাদের নানাভাবে হয়রানি ও নাজেহাল হতে হয়। কারখানাটিতে প্রায়ই তাদের বেতন দেরিতে পরিশোধ করা হয়।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নূর আলম জানান, শ্রমিকদের ঢিলে তিন পুলিশ আহত হয়েছে। তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মালিকপক্ষের সঙ্গে কথা বলে দ্রুত এ সমস্যার সমাধানের আশ্বাসে শ্রমিকরা সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চলে গেলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।


মন্তব্য