kalerkantho


ঈশ্বরগঞ্জে আসামি ধরতে গিয়ে হামলার শিকার পুলিশ

শতাধিক এলাকাবাসীকে আসামি করে মামলা

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



আসামি ধরতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন গৌরীপুর পুলিশের ৯ সদস্য। গত বুধবার রাতে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার রাজীবপুর ইউনিয়নের নতুন চর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় আত্মরক্ষার্থে দশ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে পুলিশ। এ ঘটনায় গুরুতর আহত কনস্টেবল মো. শাহীন মিয়াকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঈশ্বরগঞ্জ থানায় শতাধিক এলাকাবাসীকে আসামি করে মামলা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গৌরীপুর থানায় দায়ের করা একটি নিয়মিত মামলার একাধিক আসামি ঈশ্বরগঞ্জের নতুন চর এলাকায় অবস্থান করছে বলে খবর পায় পুলিশ। গত বুধবার মধ্যরাতে উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মিজানুল ইসলামের নেতৃত্বে ৯ জন পুলিশের একটি দল ওই চরে যায়। পুলিশ সেখান গিয়ে আসামি ধরার চেষ্টা করলে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী জানায়, রাত আনমানিক আড়াইটার দিকে হঠাৎ বসতঘরের বেড়ায় বিকট শব্দ পাওয়া যায়। এ সময় ঘুমন্ত লোকজন কে কে বলে চিৎকার করলে অকথ্য গালাগাল দিয়ে বাড়িঘরে হামলা চালায়।

এতে লোকজন সশস্ত্র ডাকাত বা চোর মনে করে ধর ধর বলতেই কয়েক শ লোক জমায়েত হয়। এ অবস্থায় শীতের কাপড় পরা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় কয়েকজন বন্দুক তাক করে গুলি ছুড়লে আত্মরক্ষার্থে লোকজন পাল্টা আক্রমণ করে। এ ঘটনায় এলাকার প্রায় সাত-আটজন আহত হয়। তারা গোপনে চিকিৎসা নিচ্ছে।

গৌরীপুর থানার ওসি মো. দেলোয়ার আহম্মদ জানান, ঈশ্বরগঞ্জ এলাকায় আসামি ধরতে গিয়ে তাঁর থানার পুলিশ হামলার শিকার হয়েছে বলে সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেছেন। এ ঘটনায় এলাকার ১৫ জন ও অজ্ঞাতপরিচয় ৯০ জনকে আসামি করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় এজাহার পাঠানো হয়েছে। মামলার বাদী হয়েছেন উপপরিদর্শক মিজানুল ইসলাম।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ওসি মো. বদরুল আলম খান গতকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে বলেন, আসামি ধরতে গৌরীপুর থানার পুলিশের অভিযান সম্পর্কে তিনি কিছুই জানতেন না। পরে জেনেছেন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরে হয়েছে।


মন্তব্য