kalerkantho


চায়ের বিল নিয়ে ঝগড়া

ত্রিশালে ভাঙচুর প্রতিবাদে মহাসড়ক অবরোধ

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



দোকানের চায়ের বিল না দেওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিবাদের জেরে সোমবার রাতে ময়মনসিংহের ত্রিশালে অন্তত তিনটি লেগুনায় ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এর প্রতিবাদে শ্রমিকরা প্রায় এক ঘণ্টা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে। লেগুনা ভাঙচুরের ঘটনায় সোমবার রাতে ত্রিশাল থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশ জিলানী নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে। গতকাল মঙ্গলবার তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

থানা ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ত্রিশালের দরিরামপুর কোচস্ট্যান্ড এলাকায় চায়ের বিল না দেওয়াকে কেন্দ্র করে সোমবার রাতে এক চা দোকানির সঙ্গে স্থানীয় এক ব্যক্তির (যিনি নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দেন) কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে শ্রমিক সংগঠনের নেতারাও ওই কথা-কাটাকাটিতে জড়িয়ে পড়লে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এরই জেরে রাত ৮টার দিকে কিছু লোক মহাসড়কের দরিরামপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তিনটি লেগুনা ভাঙচুরসহ শ্রমিক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আনারুলকে মারধর করে।

পরে এ ঘটনার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করে শ্রমিকরা। এ সময় ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে প্রায় এক ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। খবর পেয়ে ত্রিশাল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে ওই ঘটনায় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয়।

শ্রমিকরা ত্রিশাল সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংসদের অফিস থেকে জিলানী (২৮) নামের একজনকে আটক ও মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

স্থানীয় মোটরযান কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি জামাল উদ্দিন বলেন, ‘সাংবাদিক নামধারী কিছু চাঁদাবাজ আমাদের কাছে চাঁদা দাবি করে এবং চাঁদা না দেওয়ায় ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের নিয়ে গাড়ি ভাঙচুর করে। ’

ত্রিশাল থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, চায়ের বিল না দেওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে কথা-কাটাকাটি থেকে গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় মামলা হয়েছে এবং জিলানী নামের একজনকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়েছে।


মন্তব্য