kalerkantho


মেহেরপুরে নুহু হত্যা মামলা

অভিযোগপত্র থেকে আসামিরা বাদ

মেহেরপুর প্রতিনিধি   

৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



মেহেরপুর সদর উপজেলার বুড়িপোতা গ্রামে বিএনপিকর্মী নুহু মণ্ডল হত্যা মামলার আসামিদের অভিযোগপত্র থেকে বাদ দেওয়ার অভিযোগ তোলা হয়েছে। গত শনিবার বিকেলে মেহেরপুর প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে নুহু মণ্ডলের ছোট ভাই ও মামলার বাদী ফিরোজ মণ্ডল এ অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় তিনি আদালতে নারাজির আবেদন করবেন বলে জানিয়েছেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ফিরোজ মণ্ডল বলেন, ‘গত বছরের ৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় মেহেরপুর সদরের বুড়িপোতা গ্রামে স্থানীয় ইউপি সদস্য শরীফ উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী আমার ভাই নুহু মণ্ডলকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। এ সময় বাধা দিতে গেলে তারা আমাকেও মারধর করে। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আমার ভাই মারা যায়। পরদিন স্থানীয় ইউপি সদস্য শরীফ উদ্দিনকে প্রধান করে ২১ জনের বিরুদ্ধে মেহেরপুর সদর থানায় মামলা করি। অথচ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা স্থানীয় ইউপি সদস্য শরীফ উদ্দিনসহ সাতজন মূল আসামিকে বাদ দিয়ে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এ বিষয়ে আমি আদালতে নারাজি আবেদনের প্রক্রিয়া শুরু করলে ওই আসামিরা আমাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখায়। যে কারণে আমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় আছি। ভাইয়ের হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার নিয়েও শঙ্কিত।

ফিরোজ আরো জানান, মামলায় ২১ আসামির মধ্যে সাতজন আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালতের নির্দেশে জেলহাজতে রয়েছেন। একজন জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। চার্জশিট থেকে বাদ দেওয়া আসামি ছাড়াও আরো ছয় আসামি এখনো গ্রেপ্তার হয়নি।

উল্লেখ্য, বুড়িপোতা ঈদগাহপাড়ার আবদুর রাজ্জাকের ছেলে রাসেল আহমেদ প্রতিবেশী নুহু মণ্ডলের সপ্তম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত রোজার ঈদে ওই মেয়েকে নিয়ে পাশের গ্রামে বেড়াতে যায় রাসেল। বিষয়টি জানতে পেরে নুহু তার মেয়ে ও রাসেলকে চড়-থাপ্পড় দেন। পরে বাড়ি ফেরার পথে আব্দুর রাজ্জাক, তার ভাই ইউসুফ আলী, আনার আলী মিলে নুহুকে ব্যাপক মারধর করে।


মন্তব্য