kalerkantho


দাওয়াত না দেওয়ায় ছাত্রলীগ নেতার হুমকি

জয়পুরহাটে কলেজের ক্রীড়ানুষ্ঠান স্থগিত

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হওয়ার পর ছাত্রলীগ নেতার হুমকিতে জয়পুরহাট সরকারি মহিলা কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান স্থগিত করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার কলেজ চত্বরে দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দাওয়াত না পাওয়ায় বুধবার বিকেলে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কলেজ অধ্যক্ষকে হুমকি দিলে অনুষ্ঠান স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

কলেজ সূত্রে জানা যায়, সম্পূর্ণ ঘরোয়া পরিবেশে জয়পুরহাট সরকারি মহিলা কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ। সে অনুযায়ী কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তিদের দাওয়াত না করে প্রধান অতিথি করা হয় জয়পুরহাট সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোফাখ্খারুল ইসলামকে। বৃহস্পতিবার কলেজ চত্বরে অনুষ্ঠান আয়োজনের কথা ছিল। কিন্তু ছাত্রলীগসহ রাজনৈতিক ব্যক্তিদের দাওয়াত না করায় বুধবার বিকেল ৩টার দিকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক রেজাসহ কয়েকজন কলেজে গিয়ে অধ্যক্ষের কাছে দাওয়াত না করার কৈফিয়ত চান। রাজনীতিকদের বাদ দিয়ে কেমন করে অনুষ্ঠান হয় তা দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে তাঁরা চলে যান। পরে এ বিষয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে সভা করে অধ্যক্ষ অনুষ্ঠান স্থগিত করেন। এদিকে অনুষ্ঠান স্থগিত হওয়ার খবরে কান্নায় ভেঙে পড়ে কলেজের শিক্ষার্থীরা। তারা এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে।

এ বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক রেজা মোবাইল ফোনে দাবি করেন, গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বগুড়ার সান্তাহারে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে ওই কলেজের এক শিক্ষার্থী তার ফেসবুক আইডি থেকে কটাক্ষমূলক কমেন্ট করে। এ বিষয়টি সুরাহা করার জন্য তিনি কলেজের অধ্যক্ষের কাছে নালিশ করেন। কিন্তু অধ্যক্ষ বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ায় সুরাহা না করা পর্যন্ত কলেজে তিনি অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে বলেছেন।

এ বিষয়ে জয়পুরহাট সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মো. মোজাফ্ফর হোসেন জানান, গত বুধবার বিকেল ৩টার দিকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ কয়েকজন কলেজে আসে। এর মধ্যে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজা তাঁর কক্ষে ঢুকে দাবি করেন, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগ নেতাদের ক্রীড়ানুষ্ঠানে কেন দাওয়াত দেওয়া হয়নি। দাওয়াত না দেওয়ায় এ অনুষ্ঠান করা যাবে না বললে তিনি কলেজের শিক্ষকদের সঙ্গে পরামর্শ করে অনুষ্ঠান স্থগিত করেছেন। কোনো শিক্ষার্থীর ফেসবুকে করা কোনো মন্তব্য নিয়ে বুধবার ছাত্রলীগের ওই নেতা কিছু বলেননি বলে তিনি জানান।


মন্তব্য