kalerkantho


৮০০ বছরের পুরনো ৪২ গম্বুজের মসজিদ

জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি   

৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার পাইটকাপাড়া গ্রামে ৮০০ বছরের পুরনো ৪২ গম্বুজবিশিষ্ট মসজিদ আবিষ্কার করেছে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর। সতীশের ডাঙ্গা এলাকায় প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগ খনন করে এই প্রাচীন নিদর্শনের সন্ধান পায়।

গতকাল বৃহস্পতিবার এ নিদর্শনটি পরিদর্শন করেন সংস্কৃতিবিষয়ক সচিব মো. ইব্রাহীম হোসেন খান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের মহাস্থান জাদুঘর কাস্টোডিয়ান মুজিবুর রহমান, তাজহাট জমিদার বাড়ি কাস্টোডিয়ান আবু সাইদ ইনাম তানভীরুল, মহাস্থান জাদুঘর অ্যাসিস্ট্যান্ট কাস্টোডিয়ান এস এম হাসানাত বিন ইসলাম, ইউএনও মুহ. রাশেদুল হক প্রধান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জামিনুর রহমান ও কামরুল আলম কবির প্রমুখ।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত নভেম্বর থেকে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) মোছা. নাহিদ সুলতানার নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি দল গড় ধর্মপাল ও সতীশের ডাঙ্গায় খনন কাজ শুরু করে। গড় ধর্মপাল খনন করে পাল বংশীয় নিদর্শন উদ্ধার করা হয়। পরে সতীশের ডাঙ্গায় খননকাজ শুরু করে সুলতানি আমলের ৩০টি পিলার আবিষ্কৃত হয়।

খননকাজে নিয়োজিত পাহাড়পুর কাস্টোডিয়ান ছাদেকুজ্জামান জানান, ২৪ বাই ২০ মিটার পরিমাপের ৪২ গম্বুজবিশিষ্ট আয়তাকার ৩০টি পিলারের সুলতানি আমলের (১২০০ খ্রিস্টাব্দ) একটি মসজিদের ভিত্তি নকশা আবিষ্কৃত হয়। তিনি বলেন, ‘এ ধরনের নিদর্শনের মধ্যে বাগেরহাটে ষাট গম্বুজ মসজিদ বড়। এত দিন যশোরের বারো বাজার সাতগাছিয়া গায়েবানা মসজিদটি দ্বিতীয় স্থানে ছিল। এখন ৪২ গম্বুজ মসজিদটি দ্বিতীয় স্থানে থাকবে।

সংস্কৃতিসচিব ইব্রাহীম হোসেন খান বলেন, ‘এই এলাকার প্রাচীন নিদর্শনগুলো নিয়ে একটি প্রত্নতত্ত্ব জাদুঘর করার পরিকল্পনা রয়েছে। ’


মন্তব্য