kalerkantho


আহত ১৮

শাবিতে গভীর রাতে ছাত্রলীগে রক্তারক্তি

শাবিপ্রবি প্রতিনিধি   

৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। গত বুধবার রাতে শাহপরাণ হলে থেমে থেমে প্রায় দুই ঘণ্টাব্যাপী এ সংঘর্ষে অন্তত ১৮ জন আহত হয়েছে। আহতদের সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাত ১১টার দিকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান খান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজিদুল ইসলাম সবুজের অনুসারীদের মধ্যে প্রধান গেটে তর্ক হয়। কথা-কাটাকাটির পর বিজ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক আশিকুজ্জামান রূপককে পেটানোর অভিযোগ ওঠে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক উপসম্পাদক লক্ষ্মণ চন্দ্র বর্মণ, সদস্য বাছির মিয়া, মুনকির কাজী ও হিমেলের বিরুদ্ধে। এর মধ্যে রূপক ইমরানের অনুসারী এবং অন্য চারজন সবুজের অনুসারী। একে কেন্দ্র করে রাতে শাহপরাণ হলে সংঘর্ষে জড়ায় ছাত্রলীগ।

উভয় পক্ষে আহতরা হলেন মনিরুজ্জামান মনির, সুমন তালুকদার, মৃণ্ময় দাস ঝুটন, উজ্জ্বল সাহা, নাহিদ, পিয়াস, মুনকির, জয়, ইয়ামিন, পাপলু, শিহাব, শামসুল, জাহিদ, জুবায়ের, মনোয়ার হোসেন, সিমান্ত, ফিরোজ, আদনান প্রমুখ। আশিকুজ্জামান রূপক বলেন, ‘প্রধান গেটে আমাকে ডেকে নিয়ে কোনো কিছু না বলেই লক্ষ্মণ, বাছির, মুনকির, হিমেল হামলা চালায়। ’ তবে লক্ষ্মণ চন্দ্র বর্মণ অস্বীকার করে বলেন, ‘হট্টগোল শোনার পর আমি সেখানে যাই। ’

শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজিদুল ইসলাম সবুজ বলেন, ‘আমরা সিনিয়র-জুনিয়রের মধ্যে বিষয়টি মীমাংসার উদ্যোগ নিলেও প্রধান  গেটে বাতি নিভিয়ে হামলা চালানো হয়।

মীমাংসার উদ্যোগ ভণ্ডুল হয়ে যায়। ’

সাধারণ সম্পাদক ইমরান খান বলেন, যে বা যারা সংঘর্ষের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মারামারি শেষে জালালাবাদ থানার পুলিশের একটি দল এসে শাহপরাণ হলের সামনে এসে পৌঁছে। তবে ঘটনাস্থলে যাননি কোনো কর্মকর্তা। একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া আমরা হলে প্রবেশ করতে পারব না।

এ বিষয়ে শাহপরাণ হলের প্রভোস্ট শাহেদুল হোসাইন বলেন, ‘রাতে ঘটনার খবর শুনে আমি অ্যাম্বুল্যান্স পাঠিয়েছি। সকালে এসে সবার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করছি। যারা আইন-শৃঙ্খলাবিরোধী কাজের সঙ্গে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। শাহপরাণ হলের সহকারী প্রভোস্ট আশীষ কুমার বণিককে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন একই হলের সহকারী প্রভোস্ট আবুল হাসনাত ও ফেরদৌস আলম। ’


মন্তব্য