kalerkantho


নরসিংদীতে খুন সিএনজি অটোচালক, দুই বন্ধু আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, নরসিংদী   

১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



নরসিংদীতে খুন সিএনজি অটোচালক, দুই বন্ধু আটক

সুজন হত্যাকাণ্ডের খবরে নরসিংদী সদরের ঘোষপাড়ার বাড়িতে স্বজনদের আহাজারি। ছবি : কালের কণ্ঠ

সুজন মিয়া (২০) নামের এক সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালকের লাশ গত সোমবার রাতে নরসিংদী শহরের ইউএমসি জুট মিল বালুর মাঠ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এলাকাবাসী এ ঘটনার সন্দেহভাজন ঘাতক দুই বন্ধুকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

নিহত সুজন মিয়া শহরের ঘোষপাড়া এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের পরিবারের লোকজন জানায়, নিহত সুজন মিয়া অটোরিকশা চালানোর পাশাপাশি বাবার ব্যবসা দেখাশোনা করতেন। গত রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে শহরের ঘোষপাড়ায় বাবার দোকানে কাজ করার সময় দুই বন্ধু তাঁকে ডেকে নিয়ে যায়। এর পর থেকে তিনি নিখোঁজ হন। এলাকা ও নিকট আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর সন্ধান পাওয়া যায়নি। সোমবার রাত ৮টার দিকে এলাকার লোকজন পাশের ইউএমসি জুট মিল বালুর মাঠে নিখোঁজ সুজনের মৃতদেহ দেখতে পায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ঘোষপাড়ায় নিহত সুজনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, সুজনের মৃত্যুতে স্বজনদের মধ্যে শোকের ছায়া বিরাজ করছে। সন্তানকে বুকে জড়িয়ে আহাজারি করছেন সুজনের স্ত্রী আনুফা বেগম।

তাঁর সঙ্গে কাঁদছে শিশু জিম। আনুফা বেগম কাঁদতে কাঁদতে বলেন, ‘আমার সন্তানকে যারা এতিম করল, আমারে যারা বিধবা করল, আমি তাদের বিচার চাই। ’

নিহতের বাবা আবুল হোসেন বলেন, ‘আমার পুতের (ছেলের) কাছ থেকে তার দুই বন্ধু কাউছার ও সুজন ৬০০ টাকা ধার নিছিল। সেই টাকা দেওয়ার কথা বলে এর আগে তারা দুইবার গাঙপাড় (নদীর পাড়) নিয়ে গিয়েছিল। আমি খবর পেয়ে সেখান থেকে ছেলেকে নিয়ে আসি। তারা আবার গত রবিবার রাতে সুজনকে দোকান থেকে ডেকে নিয়ে যায়। কিন্তু সেদিন আর আমার পুতেরে খুইজ্জা পাই নাই। পরদিন রাতে পাইলাম তার লাশ। তারা আমার ছেলেরে হত্যা করছে। আমি তাগো ফাঁসি চাই। ’

নরসিংদী সদর মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোজাফ্ফর বলেন, ‘এলাকাবাসী সোমবার রাতে কাউছারকে ও মঙ্গলবার সকালে সুজনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে। আমরা ধারণা করছি, তারা এ ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। ’

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) হাসিবুল আলম বলেন, ‘নিহতের গলায় তার পেঁচানো ছিল। এতে প্রাথমিকভাবে আমাদের ধারণা, সুজনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে।   ঘটনাস্থল থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহূত তারটি উদ্ধার করা হয়েছে। আমাদের ধারণা, হত্যাকাণ্ডে একাধিক ঘাতক অংশ নিয়েছে। তাদেরকে শনাক্ত করে গ্রেপ্তারের অভিযান চলছে। ’


মন্তব্য