kalerkantho


ফতুল্লায় গার্মেন্ট কর্মকর্তার আশুলিয়ায় যুবকের লাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার (ঢাকা) ও নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় একটি পোশাক কারখানার কর্মকর্তা নূরুল আলম তানজিলের (৪৫) ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল শনিবার দুপুরে কাশিপুর পশ্চিম দেওয়ানবাড়ি এলাকায় পিয়ার আলীর নির্মাণাধীন ভবন থেকে তানজিলের লাশ উদ্ধার করা হয়।

তানজিলের স্ত্রী হাবিবা আক্তার জানান, তানজিল চাঁদপুরের প্রজাপতি এলাকার জয়নাল আবেদীনের ছেলে। ফতুল্লার কাঠেরপুলের আলী অ্যাপারেলস অ্যান্ড ডায়িংয়ের ইনচার্জ তানজিল কাশিপুর বাংলাবাজার আমবাগান এলাকার হ্যাপী ভিলায় সপরিবারে থাকতেন। তাঁর দুই ছেলে এক মেয়ে রয়েছে।

হাবিবা জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় শহরের নিতাইগঞ্জে আত্মীয়ের বাড়িতে দাওয়াত খেয়ে তাঁদের সবাইকে বাসায় দিয়ে‘রসুলপুর ডায়িংয়ে যাওয়ার কথা বলে বের হন তানজিল। রাতে তানজিল বাসায় না ফেরায় তাঁর ব্যবহূত মোবাইল ফোনে কল করা হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। গতকাল সকালে হাবিবার বাবার ভাড়াটিয়া কাশিপুর পশ্চিম দেওয়ান বাড়ির পিয়ার আলীর নির্মাণাধীন ভবনের একটি কক্ষে এলাকাবাসী তানজিলের ঝুলন্ত লাশ দেখে। সংবাদ পেয়ে তাঁরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এটি হত্যাকাণ্ড নাকি আত্মহত্যা বলতে পারছেন না হাবিবা।

হাবিবা জানান, তাঁর বাবার বাড়ির পাশে তাঁরা ২ শতাংশ জমি কিনেছেন।

সেই জমি নিয়ে কারো সঙ্গে বিরোধ বা তানজিলের অফিসে কোনো ধরনের ঝামেলা আছে কি না হাবিবার জানা নেই।

ঘটনাস্থলে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শাহজালাল জানান, ধারণা করা হচ্ছে রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন তানজিল। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ ১০০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন এলে জানা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা।

এদিকে আশুলিয়া থেকে গতকাল ভোরে এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির (২৫) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের কবিরপুরে বাংলাদেশ বেতারের প্রধান ফটকের সামনে থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আশরাফুল আলম জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ধারণা করা হচ্ছে, রাতে রাস্তা পার হওয়ার সময় দ্রুতগামী কোনো গাড়িতে চাপা পড়ে বা বাসের ছাদ থেকে পড়ে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেলে তাঁর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। তাঁর পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে।


মন্তব্য