kalerkantho


ভৈরব ঝিনাইগাতী ও হাজীগঞ্জে চার লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গতকাল শনিবার দুই ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই দিন শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে এক যুবকের ও চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে গত শুক্রবার রাতে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) : সকালে ভৈরব উপজেলার জাফরনগর গ্রাম থেকে সিদ্দিক মিয়ার (৪৮) ও ভৈরব বাজার লঞ্চঘাট এলাকা থেকে আলাউদ্দিনের (৭০) লাশ উদ্ধার করা হয়। ছিদ্দিক মিয়া জাফরনগর গ্রামের নায়েব আলী মিয়ার ছেলে। তাঁর বিরুদ্ধে দুটি হত্যা মামলাসহ প্রায় একডজন ডাকাতি ও মারামারির মামলা রয়েছে। পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাতের কোনো একসময় ছিদ্দিককে তাঁর বাড়ির পাশেই খুন করে ফেলে যায় আততায়ীরা। তাঁর মুখসহ শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে। আলাউদ্দিন সুনামগঞ্জের সাচনার মৃত কমর উদ্দিনের ছেলে। তিনি লেপ-তোশকের ব্যবসা করতেন। ব্যবসায়িক কারণে তিনি গাজীপুর গিয়েছিলেন। লঞ্চে করে বাড়ি ফিরতে তিনি ভৈরব লঞ্চঘাটে অপেক্ষা করছিলেন।

মৃত্যুর পর তাঁর মুখে ফেনা ছিল। পুলিশের ধারণা, হার্টঅ্যাটাকে তাঁর মৃত্যু হয়েছে।

শেরপুর : ঝিনাইগাতী উপজেলার গান্ধীগাঁও গ্রামের টাঙ্গাইলপাড়া এলাকার বন থেকে উদ্ধার করা হয়েছে গুরুচরণ দুধনই গ্রামের সওদাগর মিয়ার ছেলে মজিবর রহমানের (৪২) লাশ। পুলিশ জানায়, গত শুক্রবার রাতে ভাত খাওয়ার সময় মজিবরের মোবাইল ফোনে একটি কল এলে তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। গতকাল সকালে আকাশমনি গাছের বাগানে তাঁর মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন থানায় খবর দেয়। স্থানীয়রা জানান, গান্ধীগাঁওয়ের রহমতের বাড়িতে শুক্রবার রাতে বসা জুয়ার আসরে মজিবর রহমানও ছিলেন। জুয়াখেলা নিয়ে বিরোধে মজিবর খুন হতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনার পর রহমত ও অন্যান্য জুয়াড়িরা এলাকা ছেড়েছেন।

ঝিনাইগাতী থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, প্রাথমিকভাবে মৃতদেহে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর জেলা হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

চাঁদপুর : হাজীগঞ্জ উপজেলার ধেররা এলাকার চৌধুরী বাড়ির নিজ ঘর থেকে ওমর ফারুক চৌধুরীর (৫০) অর্ধগলিত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তিনি মৃত অহিদুল হায়দার চৌধুরীর মেঝ ছেলে। তিনি ২০১৫ সালে হাজীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন।

হাজীগঞ্জ থানার ওসি মো. জাবেদুল ইসলাম বলেন, ওমর ফারুক চার-পাঁচ দিন আগে নিহত হয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে হত্যার কোনো আলামত পাওয়া যায়নি। লাশের ময়নাতদন্ত হবে। ওসি জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় এক হকার ওমর ফারুকের বাসায় পত্রিকা দিতে গিয়ে দুর্গন্ধ পান। হকার বিষয়টি ফারুকের পরিবারসহ স্থানীয়দের জানান। পরিবারের সদস্যরা ফারুক চৌধুরীর বাড়িতে গিয়ে ভেতরের ঘরে অর্ধগলিত লাশ দেখতে পায়।


মন্তব্য