kalerkantho


কমলগঞ্জে ফরেস্টকর্মীকে হত্যা করল গাছচোররা

নরসিংদীতে ব্যবসায়ী খুন, নালিতাবাড়ীতে গৃহবধূর লাশ

প্রিয় দেশ ডেস্ক   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কমলগঞ্জে ফরেস্টকর্মীকে হত্যা করল গাছচোররা

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে পুলিশের ‘অসৌজন্যমূলক’ আচরণের জেরে গতকাল গোপালগঞ্জ শহরের সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজের সামনের সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে সংগঠনটির কর্মীরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ফরেস্ট ভিলেজারকে কুপিয়ে হত্যা করেছে গাছচোররা। নরসিংদীতে সবজি ব্যবসায়ী খুন হয়েছেন।

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর : 

মৌলভীবাজার : কমলগঞ্জ উপজেলায় সামাজিক বনায়নের সদস্য ও ফরেস্ট ভিলেজার ফারুক হোসেন ওরফে সুন্দর আলীকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে গাছচোরদের বিরুদ্ধে। গত বুধবার রাতে উপজেলার রাজকান্দি বনরেঞ্জের বাঘাছড়া বিটের সামাজিক বনায়ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরদিন বৃহস্পতিবার ভোরে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে কমলগঞ্জ থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। সুন্দর আলী উপজেলার পূর্ব কানাইদেশী গ্রামের নূর মোহাম্মদ ওরফে বোদাই মিয়ার ছেলে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রাজকান্দি রেঞ্জের ওসি আব্দুল আহাদ বলেন, ‘বুধবার রাতে বাঘাছড়া বিটে সামাজিক বনায়নে গাছচোর ঢুকেছে শুনে সুন্দর আলী তাদের তাড়া করতে যান। অনেক রাতেও তিনি ফিরে না আসায় অন্য ফরেস্ট ফিলেজাররা তাঁকে খুঁজতে বের হন।

ভোরে (গতকাল) বনের ভেতরে তাঁর ক্ষতবিক্ষত লাশ পাওয়া যায়। তাঁর শরীরে দা ও কুঠারের একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, গাছচোররা কুপিয়ে তাঁকে হত্যা করেছে। ’ অন্যদিকে ইসলামপুর ইউনিয়নের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান বলেন, সংঘবদ্ধ গাছচোরচক্রের কারণে বাঘাছড়া ও কুরমা বনাঞ্চলের গাছগাছালি রক্ষা করা যাচ্ছে না। কারা এ ধরনের কাজে জড়িত তা বন বিভাগের অজানা নেই। এ চক্রই তাঁকে (সুন্দরকে) কুপিয়ে হত্যা করে পালিয়ে গেছে বলে চেয়ারম্যানের ধারণা। সাবেক ইউপি সদস্য মছদ্দর আলী বলেন, ‘এক মেয়ের বাবা সুন্দর আলী দীর্ঘদিন ধরে এ বনায়নে ভিলেজারের দায়িত্বে ছিলেন। তিনি খুব সৎ ও সহজ-সরল লোক ছিলেন’। এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।   

নরসিংদী : সদর উপজেলার নগর পাঁচদোনায় গত বুধবার সন্ধ্যায় সবজি ব্যবসায়ী আইয়ুব আলীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসী ঘাতক মেজো মিয়াকে আটক করে পুলিশে দেয়। আইয়ুব জাঙ্গাল গ্রাম থেকে কৃষিকাজ ও সবজি বিক্রি করতেন। তিনি ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের করিম আলীর ছেলে। এ ঘটনায় ব্যবসায়ীর ছেলে শাহজাহান বাদী হয়ে মেজো মিয়াকে আসামি করে মাধবদী থানায় হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, ঘটনার সময় আইয়ুব আলী বাড়ি থেকে সবজি বিক্রির জন্য পাঁচদোনা বাজারে যাচ্ছিলেন। পথে নগর পাঁচদোনায় একটি চায়ের দোকান থেকে চা নিয়ে তিনি রাস্তার পাশে বসে পান করছিলেন। হঠাৎ মেজো মিয়া আইয়ুবের ভ্যান থেকে দা নিয়ে তাঁর পেটে কোপ দেয়। এতে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। আশপাশের লোকজন আইয়ুবকে উদ্ধার করে জেলা হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এলাকাবাসী পরে মেজো মিয়াকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এ ব্যাপারে পাঁচদোনা পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মহসিন হোসেন বলেন, ‘মেজো মিয়ার বাড়ি রায়পুরা উপজেলায়। তাঁর সঙ্গে আইয়ুব আলীর কোনো শত্রুতা খুঁজে পাওয়া যায়নি। প্রাথমিক তদন্তে আমাদের ধারণা, তিনি মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন। হত্যার রহস্য উদ্ঘাটনে তাকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। ’

শেরপুর : নালিতাবাড়ী উপজেলায় গতকাল বৃহস্পতিবার গৃহবধূ কুলসুম বেগমের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তিনি শেকেরকুড়া গ্রামের আবুল কালামের স্ত্রী ছিলেন। তাঁর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। কালামের পরিবার জানায়, প্রতিদিনের মতো বুধবার রাতে খাওয়া-দাওয়া সেরে কুলসুম ঘুমাতে যান। এ সময় তারা আরেক ঘরে মোবাইল ফোনে ভিডিও দেখছিল। কিছুক্ষণ পর কুলসুমের ঘরে গিয়ে গলায় রশি পেঁচানো অবস্থায় তাঁকে ঝুলতে দেখা যায়। পরে তাঁকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। কুলসুম আত্মহত্যা করেছেন বলে তাঁদের দাবি। তবে গৃহবধূর চাচা আব্বাছ আলী অভিযোগ করেন, পারিবারিক কলহের জেরে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁর ভাতিজিকে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে রেখেছে। এ ঘটনায় তিনি নালিতাবাড়ী থানায় মামলা করেছেন।


মন্তব্য