kalerkantho


গাছ কেটে সভাপতির দায়িত্ব পালন শুরু!

মেহেরপুর প্রতিনিধি   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মেহেরপুর সদরের হাসনাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একটি পুরনো কড়ইগাছ কেটে ফেলা হচ্ছে। দায়িত্ব নেওয়ার এক মাস না পেরোতেই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এ কাজ করছেন।

তিনি গত ১৯ জানুয়ারি কমিটির সভাপতির দায়িত্ব নিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বুধবার সকালে কয়েকজন শ্রমিক ওই বিদ্যালয়ের একটি কড়ইগাছ কাটতে শুরু করে। গাছের ডালপালাগুলো কেটে দুটি পাওয়ার ট্রলিতে করে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে গাছের গোড়া কাটার সময় একটি ফোন এলে শ্রমিকরা গাছ কাটা বন্ধ করে দেয়। এলাকাবাসী জানায়, কয়েক বছর আগে এ ধরনের বড় একটি কড়ইগাছ একইভাবে কেটে ফেলা হয়েছে। তখন কেউ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। স্থানীয়রা জানায়, সব সময় ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হওয়ায় তাঁদের বিরুদ্ধে কেউ কোনো কথা বলতে পারে না। নতুন সভাপতি যোগদানের মাসখানেক না হতেই গাছ কাটায় এলাকায় নানা ধরনের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলফাজ হোসেন বলেন, ‘আমি আজ (বুধবার) থেকে দুই দিনের ছুটিতে আছি।

খবর পাওয়ার পর সভাপতিকে বলে গাছ কাটা বন্ধ করেছি। তা ছাড়া বিষয়টি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে জানিয়েছি। ’

বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বানি আমিন বলেন, পাশের একটি আম বাগান মালিকের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত মিটিংয়ে সদস্য ও অভিভাবকরা মিলে গাছটি কেটে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সে অনুযায়ী গাছটি কাটা হচ্ছে। তবে অভিযোগ পাওয়ার পর গাছ কাটা বন্ধ রাখা হয়েছে। গাছ কাটার এখতিয়ার কমিটির আছে কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে সভাপতি বলেন, ‘আগামীকাল কমিটির লোকজন নিয়ে অফিসে যাব। আপনার সঙ্গেও যোগাযোগ করব। ’

পরে গাছ কাটার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে প্রধান শিক্ষকের সঙ্গে আবার যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, গাছ কাটার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ ব্যাপারে মেহেরপুর সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আপিল উদ্দিন বলেন, বিদ্যালয়ের গাছ কাটার এখতিয়ার প্রধান শিক্ষক বা সভাপতির নেই।


মন্তব্য