kalerkantho


পবিপ্রবিতে ছাত্রলীগের শিক্ষার্থী নির্যাতন

রাস্তায় শুয়ে প্রতিবাদ

পটুয়াখালী প্রতিনিধি   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পবিপ্রবি) পাঁচ শিক্ষার্থীকে জিম্মি করে চাঁদার দাবিতে নির্যাতনের ঘটনায় গতকাল রবিবার দ্বিতীয়বারের মতো বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা। ওই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবিতে সকালে প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দেয় তারা। এ সময় তারা রাস্তায় শুয়ে পড়ে ওই ঘটনার প্রতিবাদ জানায়। পরে সমাবেশে বক্তব্য দেয় শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা হুঁশিয়ারি দিয়ে জানায়, দাবি আদায় না হলে ক্যাম্পাস অচল করে দেওয়া হবে। এদিকে একই সময়ে ভাইস চ্যান্সেলরের কার্যালয়ে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আলোচনা হয়। তখন আন্দোলকারী শিক্ষার্থীরা কর্তৃপক্ষের বক্তব্যে সন্তুষ্ট হতে পারেনি বলে জানায়।

এর আগে মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়সংলগ্ন বাখেরগঞ্জ উপজেলার নলুয়া এলাকায় পাঁচ শিক্ষার্থীকে দুমকী উপজেলা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা নির্যাতন করে। এ ঘটনায় কাউকে আটক না করা, পুলিশের কোনো তত্পরতা না থাকা এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোনো জোরালো পদক্ষেপ না নেওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ওপর ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। এ ছাড়া এর আগে বৃহস্পতিবার একই ঘটনার প্রতিবাদে ক্যাম্পাসের ভেতরে-বাইরে বিক্ষোভ মিছিল, সড়ক অবরোধসহ মানববন্ধন করা হয়। এ সময় প্রোভিসির সঙ্গে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আলোচনা হয়।

তখন তিনি তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ ওই ঘটনায় থানায় মামলা করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। কিন্তু এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়িত না হওয়ায় তারা লাগাতার ক্লাস বর্জনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে।

এ ব্যাপারে বাখেরগঞ্জ থানার ওসি মো. আজিজুর রহমান বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের নির্যাতনের ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কোনো মামলা করবে না বলে আমাকে ফোনে জানিয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগও করেনি তারা। মামলা না করলে আমরা কী করতে পারি?’ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কার সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি প্রক্টরের কথা উল্লেখ করেন।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর পূর্ণেন্দু বিশ্বাস বলেন, ‘এখন আন্দোলনকে পুঁজি করে কিছু নতুন শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে নেতা হতে চায়। এ জন্য আমাদের সাথে এ পর্যন্ত যত আলোচনা হয়েছে তা তারা মানতে চায় না। ’


মন্তব্য