kalerkantho


ইউপি সদস্যের মাথা ফাটালেন চেয়ারম্যান

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



চাঁদা দাবির অভিযোগে মামলা করায় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে তাঁর অনুসারীরা এক ইউপি সদস্যকে (মেম্বার) পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করেছে। তাঁর মাথা ফেটে গেছে এবং হাত, পা ও বুকের হাড়ে চিড় ধরেছে। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরার আশাশুনির প্রতাপনগর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে। তিনি খুলনা ৫০০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

প্রতাপনগর ইউপির আহত সদস্যের নাম রফিকুল ইসলাম বুলবুলি (৪৬)। তিনি এ ইউনিয়নের কুড়িকাহনিয়া ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি। অভিযুক্ত চেয়ারম্যানের নাম জাকির হোসেন।

কুড়িকাহনিয়া গ্রামের রেহেনা খাতুন জানান, গত নির্বাচনের পর তাঁর স্বামী বুলবুলির সঙ্গে প্রতাপনগর ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেনের সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় তাঁকে বাড়ি ছাড়তে হয়। দেড় মাস আগে তিনি বাড়ি ফেরেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বুলবুলি অভিযোগ করেন, পুলিশের সহায়তায় বাড়ি ফিরে এক রাত না কাটাতেই চেয়ারম্যান জাকির হোসেনের ঘনিষ্ঠ একই এলাকার আব্দুল খালেক, ইয়াসিন নূরী, আব্দুল মালেক, আবুল কালাম, হাসান, জাহাঙ্গীর, আলমগীরসহ কয়েকজন বলে, বাড়িতে থাকতে হলে তাদের পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে। টাকা না দিলে বুলবুলির শ্রীপুর বিলের ১০০ বিঘার চিংড়িঘের দখল করে নেওয়ার হুমকি দেয়।

গত ২ জানুয়ারি তারা এক লাখ ৭৫ হাজার টাকা আদায় করে। বাকি টাকা না দিলে বুলবুলিকে এলাকায় থাকতে দেওয়া হবে না বলে জানায়। এ ঘটনায় বুলবুলি ৫ জানুয়ারি সাতক্ষীরা আদালতে একটি চাঁদাবাজির মামলা করেন। আদালতের নির্দেশে আশাশুনি থানার ওসি অভিযোগটি এজাহার হিসেবে নিয়ে তদন্তভার উপপরিদর্শক পীযূষ দাসকে দেন। তদন্ত কর্মকর্তা ৩০ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দেন। এর জেরে গত বৃহস্পতিবার প্রতাপনগর ইউনিয়নের লস্কর খাজরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে জাকির হোসেনের নির্দেশে আব্দুল খালেক, আব্দুল মালেক, ইয়াছিন নূরী, জাহাঙ্গীর হোসেন, আবুল কালা, হাসান, আলমগীরসহ ১৪-১৫ জন বুলবুলিকে রড, দা, লাঠি দিয়ে পেটায় ও কোপায়।

চেয়ারম্যান ও প্রতাপনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাকির হোসেন বলেন, বুলবুলি তাঁর শ্রীপুরের চিংড়িঘেরে ১৪ জন ভূমিহীনের ইজারা নেওয়া জমি দখল করেছেন। এতে ক্ষুব্ধ ওই ভূমিহীনরা তাঁর ওপর হামলা চালিয়েছে বলে তিনি শুনেছেন। স্থানীয় বিরোধের কারণে বুলবুলিসহ একটি মহল তাঁর বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

আশাশুনি থানার ওসি শাহীনুল ইসলাম শাহীন বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে মামলা  নেওয়া হবে।


মন্তব্য