kalerkantho


চকরিয়া

সাফারি পার্কের সীমানা প্রাচীর নির্মাণে বাধা

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ডুলাহাজারার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কের সীমানাপ্রাচীর ভেঙে ফেলা হয়েছে। এ সময় রড, সিমেন্টসহ বিপুল পরিমাণ মালামাল লুটে নেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে।

ডুলাহাজারা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. নুরুল আমিন বলেন, সাফারি পার্কের কুমিরের খাঁচার পেছনের অংশে সীমানাপ্রাচীর নির্মাণের সময় ঠিকাদারকে বাধা দেয় স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। তাদের দাবি, সাফারি পার্কে সম্প্রতি নির্মিত প্রাচীরের ভেতরে তাদের শ্মশানের জায়গা পড়েছে। এ জন্য কিছু লোক সেখানে ভাঙচুর-লুটপাট চালায়। তবে তাদের এ দাবি সত্য নয়। এ নিয়ে সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে বৈঠক করে সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

সাফারি পার্কের তত্ত্বাবধায়ক (রেঞ্জার) কে এ মোর্শেদুল আলম বলেন, সাফারি পার্কের ভেতরে শ্মশানের কোনো জায়গা পড়েনি। এর পরও স্থানীয় লোকজন গায়ের জোরে সাফারি পার্কের উন্নয়নকাজে বাধা দিচ্ছে। এই অবস্থায় তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

সাফারি পার্কের কর্মকর্তা মো. মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী জানান, পার্কের পাশে ২০ শতাংশ জায়গায় হিন্দু সম্প্রদায়ের শ্মশান রয়েছে।

কিন্তু স্থানীয় কয়েকজন পার্কের ভেতরে আরো দুই একর জায়গা শ্মশানের দাবি করছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। স্থানীয়ভাবে বিষয়টি সমাধান না হলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে হামলা-লুটপাটে নেতৃত্ব দেওয়ার অভিযোগ ওঠা নিপু নাথ দাবি করেন, পার্ক লাগোয়া পাহাড়ি ভূমির কিছু অংশ তাঁরা শ্মশান হিসেবে ব্যবহার করে আসছেন। সেখানে পার্ক কর্তৃপক্ষ প্রাচীর নির্মাণ করায় স্থানীয় লোকজন উত্তেজিত হয়ে ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা পূজা উদ্‌যাপন পরিষদের সভাপতি তপন কান্তি দাশ বলেন, স্থানীয়ভাবে বিষয়টি সমাধানের চেষ্ট চলছে।


মন্তব্য