kalerkantho


বাকৃবিতে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে গবেষকরা

সুরক্ষা কৃষি ব্যবস্থাপনায় ফলন বাড়বে ৪০ শতাংশ

বাকৃবি প্রতিনিধি   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



কয়েক দশক থেকে দেশের কৃষিকাজের প্রায় ৮০ শতাংশ পানি ব্যবহার করা হয় ভূগর্ভস্থ থেকে। এতে পানির স্তর অনেক নিচে নেমে যাচ্ছে।

দেখা দিচ্ছে বিশুদ্ধ পানির স্বল্পতা। অন্যদিকে ভূ-উপরিভাগের পানি তুলনামূলক কম ব্যবহারের কারণে তা অব্যবহৃত থেকে যাচ্ছে। এ ছাড়া সনাতন পদ্ধতিতে চাষাবাদের ফলে জমির উর্বরতা শক্তি কমে যাচ্ছে। বাড়ছে উৎপাদন খরচ। দেখা দিচ্ছে শ্রমিক স্বল্পতা। এসব সমস্যা সমাধানে সুরক্ষা কৃষি পদ্ধতি সারা বিশ্বে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ক্ষুুদ্র যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে স্বল্প চাষের মাধ্যমে লাভজনক ফসল ফলানো সুরক্ষা কৃষির মূল বৈশিষ্ট্য।

এ পদ্ধতি ব্যবহার করে কম খরচে বেশি জমি চাষের আওতায় এনে এই দেশের ক্ষুদ্র কৃষকরা হেক্টরপ্রতি ৫০ হাজার টাকা অতিরিক্ত আয় করতে পারবে। ফসলভেদে ফলন বাড়বে প্রায় ৪০ শতাংশ, ফসল উৎপাদন খরচ কমবে ৫০ থেকে ৮৫ শতাংশ।

শ্রমিক খরচ কমবে ১৫ থেকে ৫৫ শতাংশ। এমনকি বাতাসে কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন কমবে।

মঙ্গলবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সম্মেলন ভবনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) এশিয়ার ক্ষুদ্র কৃষকদের জন্য সুরক্ষা কৃষি পদ্ধতির উদ্ভাবন ও প্রয়োগবিষয়ক তিন দিনব্যাপী এক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানান গবেষকরা। অস্ট্রেলিয়ান সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল অ্যাগ্রিকালচারাল রিসার্চের (এসিআইএআর) অর্থায়নে এ গবেষণা পরিচালিত হয়। স্থানীয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. লুত্ফুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. জসিমউদ্দিন খান উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে এসিআইএআরের অনুষ্ঠান ব্যবস্থাপক ড. ইভান, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ভাগ্যরানী বণিক, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী, অস্ট্রেলিয়ান হাইকমিশনারের প্রতিনিধি ড. প্রিয়াংকা চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অস্ট্রেলিয়ার মারডক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. রিচার্ড বেল। সম্মেলনে দেশি-বিদেশি ২৮০ বিজ্ঞানী ও শিক্ষক অংশ নেন। সুরক্ষা কৃষি বিষয়ে অবদানের জন্য ৫০ জন গবেষক ও প্রতিষ্ঠানকে ক্রেস্ট দেওয়া হয়। এদিকে সম্মেলন উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলিপ্যাডে সুরক্ষা কৃষি পদ্ধতির বিভিন্ন যন্ত্র প্রদর্শন করা হয়।


মন্তব্য