kalerkantho


বন্য প্রাণী প্রজনন কেন্দ্র

এবার ফাঁদে চিতাবিড়াল

বাগেরহাট প্রতিনিধি   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সুন্দরবনের বন্য প্রাণী প্রজনন কেন্দ্রে এবার বন বিভাগের পাতা ফাঁদে একটি চিতাবিড়াল ধড়া পড়েছে। কুমির প্রজনন কেন্দ্রের বেশ কিছু কুমিরছানা গায়েব হয়ে যাওয়ার পর বন বিভাগ এ ফাঁদ পাতে। এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি রাতে কুমির প্রজনন কেন্দ্রে ঢুকলে একটি চিতাবিড়ালকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. সাইদুল ইসলাম জানান, করমজল বন্য প্রাণী প্রজনন কেন্দ্র থেকে কুমিরের বাচ্চা নিখোঁজ এবং কয়েকটি মৃত অবস্থায় উদ্ধারের ঘটনায় সেখানে নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। এদিকে সেখানে স্থাপন করা বিশেষ ক্যামেরায় ধারণ করা ছবিতে দেখা গেছে, কয়েক দিন ধরে রাতে বিভিন্ন প্রজাতির বন্য প্রাণী কুমির প্রজনন কেন্দ্রের আশপাশে ঘোরাফেরা করছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে বন্য প্রাণী ধরতে ফাঁদ পাতা হয়। রবিবার রাতে ওই ফাঁদে একটি চিতাবিড়াল ধরা পড়ে। এটি সুন্দরবনে ছেড়ে দেওয়া হবে।

করমজল বন্য প্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. তৌহিদুর রহমান জানান, বন্য প্রাণী ধরতে কাঠ দিয়ে বাক্স তৈরি করে কুমির প্রজনন কেন্দ্রের পাশে পেতে রাখা হয়েছিল। রবিবার গভীর রাতে প্রায় দুই ফুট দীর্ঘ একটি চিতাবিড়াল মুরগি খেতে এসে ফাঁদে আটকা পড়ে।

প্রসঙ্গত, গত ২৯ ও ৩০ জানুয়ারি করমজল কুমির প্রজনন কেন্দ্র থেকে কুমিরের ৪৩টি বাচ্চা গায়েব হয়ে যায়।

এরপর ৪ ফেব্রুয়ারি রাতে প্রজনন কেন্দ্রের প্যানে মৃত অবস্থায় ১৯টি কুমিরের বাচ্চা পাওয়া যায়। পরদিন ৫ ফেব্রুয়ারি রাতে বন বিভাগ ওই প্রজনন কেন্দ্র এলাকা থেকে একটি চিতাবিড়াল গুলি করে হত্যা করে। পরে বন বিভাগ গঠিত তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি প্রজনন কেন্দ্রের ৬২টি কুমিরের বাচ্চা চিতাবিড়ালই খেয়েছে বলে উল্লেখ করে প্রতিবেদন দাখিল করে।


মন্তব্য