kalerkantho


ফরিদপুরে যুবলীগ নেতাকে হাতুড়িপেটা

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ফরিদপুরের সালথায় ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের লোকজন উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি খন্দকার সাজ্জাদ হোসেনকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত রবিবার রাতে উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের যদুনন্দী বাজার এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।

আহত সাজ্জাদকে ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সাজ্জাদ হোসেন উপজেলার যদুনন্দী ইউনিয়নের গোপীনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যুবলীগ নেতা সাজ্জাদ সাংবাদিকদের জানান, গত ইউপি নির্বাচনে তিনি যদুনন্দী ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান পদে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. রব মোল্লার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নির্বাচনে তাঁরা দুজনই পরাজিত হন। নির্বাচনের পর থেকে তিনি ঢাকায় থাকা শুরু করেন। তাঁর প্রয়াত চাচাশ্বশুরের দোয়া মাহফিলে যোগ দিতে গত শনিবার রাতে তিনি বাড়ি আসেন। রবিবার রাতে যদুনন্দী বাজার এলাকায় গেলে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রব মোল্লার ছেলে ওহিদ মোল্লা, সাহিদ মোল্লা, পিকুল মোল্লাসহ কয়েকজন তাঁকে ধরে নিয়ে বাজারের হায়াতের সাইকেলের গ্যারেজে আটকে রেখে হাতুড়ি ও রড দিয়ে বেদম মারধর করে। এ সময় তাঁর চিত্কারে বাজারের লোকজন এগিয়ে এসে তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে।

ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালের কর্মরত চিকিৎসক কল্যাণ কুমার সাহা বলেন, সাজ্জাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

তবে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে যদুনন্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুর রব মোল্লা বলেন, সাজ্জাদকে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে। তবে এ ঘটনার সঙ্গে তাঁর ছেলে বা সমর্থকরা জড়িত নয়। তিনি বলেন, খবর পেয়ে তিনি গিয়ে সাজ্জাদকে উদ্ধার করেন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেন এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন।

সালথা থানার ওসি ডি এম বেলায়েত হোসেন বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


মন্তব্য