kalerkantho


বখাটের উৎপাত

বিদ্যালয় পরিবর্তন করেও রেহাই পেল না মেয়েটি

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, রংপুর   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বিদ্যালয় পরিবর্তন করেও বখাটের হাত থেকে রেহাই পায়নি নবম শ্রেণির এক ছাত্রী। গত ৫ ফেব্রুয়ারি বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার বাঁশদহ থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। মেয়েটির বাড়ি দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলায়। মেয়ের মা এ ঘটনার এক দিন পর বদরগঞ্জ থানায় অপহরণের লিখিত অভিযোগ করেন। কিন্তু পুলিশ গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত মেয়েটিকে উদ্ধার করতে পারেনি।

থানায় লিখিত অভিযোগের সূত্রে জানা গেছে, মেয়েটি গত বছর নবাবগঞ্জের আফতাবগঞ্জ বি ইউ উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি হয়। প্রতিদিন বাড়ি থেকে বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে তাকে উত্ত্যক্ত করে প্রেমের প্রস্তাব দিত জোনাব আলীর ছেলে সাজু মিয়া (২২)। প্রত্যাখ্যান করলে তাকে অপহরণের হুমকি দেয়। এ কারণে মেয়ের মা বাধ্য হয়ে ওই বিদ্যালয় থেকে ছাড়পত্র নিয়ে চলতি বছরের জানুয়ারিতে বদরগঞ্জ উপজেলার একটি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি করে দেন। সেখানে খালার বাসায় থেকে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করত মেয়েটি। ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিদ্যালয়ে যাওয়ার জন্য বের হয় সে।

বাঁশদহ মাঠের কাছে পৌঁছালে আগে থেকে অবস্থান করা সাজু মিয়াসহ অজ্ঞাতপরিচয় দুই যুবক মেয়েটিকে জোর করে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেয়। এর পর থেকে মেয়েটির পরিবার আর তার খোঁজ পাচ্ছে না।

মেয়ের খালা বলেন, ‘মাইক্রোবাসে তুলে নেওয়ার সময় আমার ভাগ্নি বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দেয়। সকালের দিকে রাস্তায় মানুষজন না থাকায় দ্রুতগতিতে অপহরণকারীরা পালিয়ে যায়। ’

অভিযুক্ত যুবকের বাবা জোনাব আলী বলেন, ‘আমরাও মেয়েটিকে উদ্ধারের চেষ্টা করছি। কিন্তু এ মুহূর্তে তারা কোথায় আছে, তা জানা নেই। ’

মেয়ের দাদা বলেন, ‘অপহরণের ভয়ে জেলা পরিবর্তন করে লেখাপড়ার জন্য বদরগঞ্জে আত্মীয়ের বাসায় পাঠানো হয়। কিন্তু সেখান থেকেও বখাটের হাত থেকে রেহাই পেল না আমার নাতনি। ’ বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) শাহিনুর আলম বলেন, ‘অপহরণের ঘটনায় মেয়ের মা তিনজনকে অভিযুক্ত করে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ’


মন্তব্য