kalerkantho


সখীপুরে বন বিভাগ ও এলাকাবাসীর সংঘর্ষ, আহত ১০

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



টাঙ্গাইলের সখীপুরের ইছাদীঘি আতিয়াপাড়া এলাকায় বৃহস্পতিবার সকালে বন বিভাগ ও এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষই সখীপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছে।

বন বিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার হতেয়া রেঞ্জের কালিদাস বিটের আওতাধীন ইছাদীঘি আতিয়াপাড়া গ্রামের দুই সহোদর মোজাম্মেল হক ও মোতালেব হোসেন বাড়ির পাশে পোলট্রি খামারের জন্য দুটি ঘর তোলেন। খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে কালিদাস বিট কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম তাঁর সহকর্মীদের নিয়ে ওই ঘর দুটি ভাঙতে শুরু করেন।

এ সময় খামারের মালিক ও তাঁর লোকজন বাধা দিলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে বিট কর্মকর্তাসহ উভয় পক্ষের ১০ জন আহত হন। একপর্যায়ে এলাকার লোকজন বিট কর্মকর্তা ও তিন বন প্রহরীকে দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে পুলিশ গিয়ে তাঁদের উদ্ধার করে।

সংঘর্ষে পোলট্রি খামার মালিক মোজাম্মেল হক, তাঁর ভাই মোতালেব হোসেন, মা মমতা বেগম, বোন সাজেদা আক্তার, প্রতিবেশী বিল্লাল হোসেন ও দুলাল মিয়া আহত হন।

পোলট্রি খামার মালিক মোজাম্মেল হক বলেন, ‘আমাদের পূর্বপুরুষদের ভোগদখলীয় জমিতে মুরগির খামারের জন্য ঘর তুলতে গেলে বন বিভাগের লোকজন টাকা দাবি করে। টাকা না দেওয়ায় বন বিভাগের ভাড়াটে লোকজন ঘর ভাঙতে শুরু করে। এতে বাধা দিলে আমাদের ওপর হামলা চালানো হয়। ’

বিট কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম টাকা দাবির কথা অস্বীকার করে বলেন, ‘বন বিভাগের জমিতে অবৈধভাবে নির্মিত ঘর উচ্ছেদ করতে গেলে আমাদের ওপর হামলা ও অবরুদ্ধ করে রাখে। ’

সখীপুর থানার ওসি মাকছুদুল আলম বলেন, ‘খবর পেয়ে বিট কর্মকর্তাসহ অন্যদের উদ্ধার করা হয়। তদন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’


মন্তব্য