kalerkantho


ভোলার রীতি ও প্রীতি

একসঙ্গে জন্ম মৃত্যুতেও সঙ্গী

ভোলা প্রতিনিধি   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভোলা পৌর শহরের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইশরাত হোসেন রিপনের বাড়িতে মঙ্গলবার গভীর রাত পর্যন্ত মানুষের ভিড়। রিপনকে সান্ত্বনা দিচ্ছেন স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর।

এ সময় বিলাপ করে কান্নারত রিপনের স্ত্রী সাহিদা খানমকেও সান্ত্বনা দিচ্ছে স্বজনরা। অন্যদিকে ঘরের মেঝেতে সাদা কাফনে মুড়িয়ে রাখা হয়েছে ওই দম্পতির সাড়ে আট বছরের যমজ মেয়ে ইশরাত জাহান রীতি ও নুসরাত জাহান প্রীতিকে। মঙ্গলবার দুপুরে নানাবাড়ির পুকুরে গোসল করতে গিয়ে ডুবে মর্মান্তিক মৃত্যু হয় তাদের। দুজনই ভোলা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

নিহত দুই বোনের স্বজন ও স্থানীয়রা জানায়, মায়ের সঙ্গে গত বৃহস্পতিবার চরফ্যাশনের নানাবাড়ি বেড়াতে যায় তারা দুই বোন। মঙ্গলবার দুপুরে সেখানে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে ডুবে দুজনেরই মৃত্যু হয়। রীতি-প্রীতির লাশ রাতে ভোলা পৌর এলাকার বাড়িতে নিয়ে আসা হলে হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে তাদের বাড়ি ছুটে যায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, শিক্ষক-ছাত্রসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। পরে গতকাল বুধবার সকাল ১০টায় ভোলা ঈদগাহ মাঠে নিহত দুই বোনের জানাজা শেষে তাদের মুসলিম কবরস্থানে দাফন করা হয়।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে রীতি-প্রীতির বাবা ইশরাত হোসেন রিপন বলেন, ‘আল্লাহ আমাকে যমজ মেয়ে দিয়ে আবার নিয়ে গেলেন। মারা যাওয়ার দিনও সকালে মোবাইল ফোনে দুই মেয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। ওরা মা-বাবার যথেষ্ট যত্ন নিত। ’ এই বলে আবার কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। রীতি-প্রীতির চাচা আকবর হোসেন বলেন, ‘দুই মেয়েকে হারিয়ে আমরা পুরো পরিবার এখন স্তব্ধ। কিছু বলার ভাষা পাচ্ছি না। ’

স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আতিকুর রহমান বলেন, পানিতে ডুবে যজম বোনের অকাল মৃত্যুতে স্বজনদের পাশাপাশি পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এই শোক যেন সইবার নয়।

চরফ্যাশনের দক্ষিণ আইচা থানার ওসি হানিফ সিকদার জানান, পুকুরে ডুবে দুই বোনের মর্মান্তিক মৃত্যুর খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ভোলা শহরের বাবার বাড়ি পাঠায়। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।


মন্তব্য