kalerkantho


রূপগঞ্জে গ্যাস সংযোগ বৈধ করার দাবি

মহাসড়ক অবরোধ বিক্ষোভ, ধাওয়া

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মহাসড়ক অবরোধ বিক্ষোভ, ধাওয়া

অবৈধ গ্যাস বৈধ করার দাবিতে এলাকাবাসী গতকাল ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে। ছবি : কালের কণ্ঠ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে অবৈধ গ্যাস সংযোগ বৈধ করার দাবিতে ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টার প্রতিবাদে এলাকাবাসী ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে। এ সময় গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আসা তিতাস গ্যাস কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধাওয়া করে এলাকাবাসী।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার বরপা এলাকায় ওই ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী জানায়, মঙ্গলবার বিকেলে জোনাল বিপণন অফিস (জোবিঅ) সোনারগাঁর যাত্রামুড়া শাখার উপমহাব্যবস্থাপক ফয়জার রহমান, ব্যবস্থাপক মোমেন তালুকদার, সহপ্রকৌশলী আসাদুজ্জামান আজাদ পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় বরপা এলাকার অবৈধ আবাসিক গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আসেন। এ সময় বিতরণ লাইনে গ্যাস বন্ধ করে দেওয়া হলে পুরো এলাকার গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার খবর ছড়িয়ে পড়ে। পরে মাইকিং করে এলাকাবাসীকে জড়ো হতে বলা হয়। একপর্যায়ে শত শত নারী-পুরুষ লাঠিসোঁটা নিয়ে তিতাস গ্যাস কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধাওয়া করলে তাঁরা পালিয়ে যান।

অবৈধ গ্যাস সংযোগ বৈধ করে দেওয়ার দাবিতে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে অবস্থান নিয়ে দফায় দফায় বিক্ষোভ করে। এ সময় সড়কের উভয় দিকে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে ক্ষুব্ধ জনতা সড়কে টায়ারে আগুন ধরিয়ে দেয়। পুলিশ প্রশাসন বিক্ষুব্ধ জনতাকে থামানোর চেষ্টা করে।

পরে স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর আশরাফুল ইসলাম, রাসেল শিকদার ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের আশ্বাস পেয়ে তারা মহাসড়ক থেকে সরে যায়।

এ বিষয়ে জোবিঅ সোনারগাঁ জোনের যাত্রামুড়া শাখার ব্যবস্থাপক মোমেন তালুকদার বলেন, বরপা, মাসাবো, কর্ণগোপ, মৈকুলীসহ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বিতরণ লাইন স্থাপন করে বাসাবাড়িতে কয়েক হাজার অবৈধ সংযোগ নেওয়া হয়েছে। তাতে তিতাস গ্যাস কম্পানির শত শত কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। আর অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে এলাকাবাসী তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের ওপর হামলার চেষ্টা চালায়।

রূপগঞ্জ থানার ওসি ইসমাইল হোসেন বলেন, অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার প্রতিবাদে এলাকাবাসী ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ করে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।


মন্তব্য