kalerkantho

জমি নিয়ে শত্রুতা!

বালিয়াকান্দিতে পুরো পরিবারকে পুড়িয়ে হত্যাচেষ্টা

রাজবাড়ী প্রতিনিধি   

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



জমি নিয়ে শত্রুতা!

ঘরের চারপাশে এসব বৈদ্যুতিক তার এবং পেট্রল ও অকটেন মিশ্রিত বোতলগুলো রাখা হয়েছিল। এসব আলামত গতকাল সকালে পুলিশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দির এক বাড়িতে তিনটি ঘরে লোকজনকে আটকে রেখে আগুন জ্বালিয়ে হত্যাচেষ্টা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় তাদের ডাকচিত্কারে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে উদ্ধার করে।

পরে পুলিশ এসে বাড়ির চারপাশ থেকে বৈদ্যুতিক তার ও পেট্রলভর্তি ১২টি বোতল উদ্ধার করে। গত সোমবার রাতে উপজেলার নারুয়া ইউনিয়নের বিলকাতলী গ্রামের মুলামদি মণ্ডলের বাড়িতে ঘটনাটি ঘটে। জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

ঘটনার শিকার মুলামদি মণ্ডল বলেন, এক বছর ধরে ২৯ শতাংশ জমি নিয়ে তাঁদের সঙ্গে একই গ্রামের মিরাজ মিঠু বিশ্বাসের বিরোধ চলছে। এর জের ধরে ১৫ দিন আগে সিঁধ কেটে তাঁদের ঘরে ঢুকে হত্যার হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি কিছু মালামাল নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে গত সোমবার রাত দেড়টার দিকে ১৫-২০ জন লোক এসে তাঁদের তিনটি ঘরের দরজা ও লোহার গ্রিলে তালা মেরে বারান্দায় আগুন জ্বালিয়ে দেয়। এ সময় ওই তিন ঘরে তিনি, তাঁর স্ত্রী ভানু বেগম, ছেলে ওয়াজেদ মণ্ডল, ওয়াজেদের স্ত্রী মলিনা বেগম ও তাঁদের শিশু ছেলে হযরত মণ্ডল, অন্য ছেলে সাদ্দাম মণ্ডল, সাদ্দামের স্ত্রী রুপা বেগম ও তাঁদের শিশু ছেলে ইয়াকুব মণ্ডল, চাচাতো ভাই আলাউদ্দিন মণ্ডল ও তাঁর মা সুফিয়া বেগম ঘুমিয়েছিলেন। তাঁরা আগুন দেখে চিত্কার শুরু করলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে। পরে তারা আগুন নেভানোর পাশাপাশি ওই বাড়িতে আটকে পড়া ব্যক্তিদের মুক্ত করে।

খবর পেয়ে রাতেই বালিয়াকান্দি থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

মুলামদি মণ্ডলের ছেলে সাদ্দাম মণ্ডল বলেন, মানুষ এত নিকৃষ্ট মানসিকতার কিভাবে হয়! জমি নিয়ে বিরোধ নানা উপায়ে নিষ্পত্তি করা সম্ভব। অথচ মিঠু তাঁদের তিনটি ঘরে ১০ জনকে আটকে রেখে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। যদি তাঁরা আগুন দেখতে না পেতেন এবং তাঁদের চিত্কারে এলাকাবাসী ছুটে না আসত, তাহলে তাঁদের অবস্থা কী হতো। তিনি এমন নিষ্ঠুর ব্যক্তি মিঠুর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান।

মিঠুর মামা আবদুর রশিদ বলেন, ঘটনাটি মর্মান্তিক। এ ঘটনার জন্য তাঁর ভাগ্নে মিঠুই দায়ী। তিনিও এমন লোমহর্ষক ঘটনার উপযুক্ত বিচার হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন।

বালিয়াকান্দি থানার ওসি জাহিদুল ইসলাম পিপিএম জানান, অনাকাঙ্ক্ষিত একটি ঘটনা থেকে মুলামদি মণ্ডলের পরিবারের সদস্যরা রক্ষা পেয়েছে। থানা পুলিশের সদস্যরা রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে তাঁদের উদ্ধার করে এবং গতকাল মঙ্গলবার সকালে কিছু বৈদ্যুতিক তার এবং পেট্রল ও অকটেন মিশ্রিত ১২টি বোতল উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় গতকাল বিকেলে মুলামদি মণ্ডলের ছেলে সাদ্দাম মণ্ডল বাদী হয়ে মিঠু বিশ্বাসসহ অজ্ঞাতপরিচয় ১৫-২০ জনকে আসামি করে থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন। ঘটনার পর থেকে মিঠু পলাতক রয়েছে।


মন্তব্য